khabor online most powerful bengali news

“এরা মার্কিন নাগরিকদের শত্রু”, পাঁচ মার্কিন মিডিয়াসংস্থাকে তোপ ট্রাম্পের

ওয়াশিংটন: মার্কিন মিডিয়ার সঙ্গে তার ‘মধুর’ সম্পর্কের কথা সর্বজনবিদিত। গদিতে বসার আগে থেকেই বারংবার মিডিয়ার বিরাগভজন হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ফের একবার মিডিয়ার উদ্দেশে তোপ দাগলেন তিনি। এমনকি মার্কিন জনতার শত্রু হিসেবে সরাসরি অভিযোগ তাঁর। যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচটি মিডিয়া সংস্থা এনওয়াই টাইম্‌স, এনবিসি নিউজ, এবিসি, সিবিএস এবং সিএনএনকে মার্কিন নাগরিকদের শত্রু আখ্যা দিয়ে শুক্রবার একটি টুইট করেন ট্রাম্প। টুইটে ট্রাম্প লেখেন, “এই সব নকল মিডিয়া আমার শত্রু নয়, এরা যুক্তরাষ্ট্রের শত্রু।” এর কিছুক্ষণ পরে অবশ্য টুইটটি কিছুটা সংশোধন করে নেন ট্রাম্প। নতুন টুইটে এবিসি এবং সিবিএস-এর নাম মুছে দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। নতুন টুইটে ‘অসুস্থ’ শব্দটিও ব্যবহার করেন ট্রাম্প। ট্রাম্পের এই টুইটের পরিপ্রেক্ষিতে…

আরও পড়ুন

পুতিনের পাশে ট্রাম্প, বললেন আমেরিকার ভুলের জন্যও
বহু মানুষ প্রাণ দিয়েছেন

ওয়াশিংটন: কথায় বলে রতনে রতন চেনে। পুতিনকে রক্ষা করতে এগিয়ে এলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, আমেরিকা যা করেছে, পুতিনও তাই করেছেন। আমেরিকার ভুলের জন্য বিশ্ব জুড়ে বহু মানুষকে প্রাণ দিতে হয়েছে। ফক্স নিউজের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, “তা হলে দেখুন, আমরা অতীতে কী করেছি। আমরা অনেক ভুল করেছি। আমি গোড়া থেকেই ইরাক-যুদ্ধের বিরোধী ছিলাম। বুঝলেন, প্রচুর ভুল হয়েছে। আর তার খেসারত হিসাবে প্রচুর মানুষ প্রাণ দিয়েছেন।” যখন বলা হয় রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন এক জন ‘হত্যাকারী’, তখন ট্রাম্প বলেন, “তা হলে তো আমাদের চার পাশে অনেক হত্যাকারী ঘুরে বেড়াচ্ছে। আপনারা কি ভাবেন, আমাদের দেশ একেবারে ধোয়া তুলসীপাতা?”…

আরও পড়ুন

ইরান জানিয়ে দিল তারাও মার্কিন নাগরিকদের ঢুকতে দেবে না

তেহরান: পালটা দিল ইরান। জানিয়ে দিল তারাও মার্কিন নাগরিকদের ইরানে ঢোকা বন্ধ করে দেবে। তবে কবে থেকে তা কার্যকর হবে তা স্পষ্ট করে বলেনি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে সাতটি মুসলিম-প্রধান দেশের মানুষদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে দিয়েছে, ইরান তাদের অন্যতম। ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে ইরানের বিদেশ মন্ত্রক একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, “যতদিন ইরানের মানুষের ওপর এই মার্কিন নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে, তত দিন ইরানও পারস্পরিকতার নীতি অনুসরণ করে চলবে।” ওই বিবৃতিতে ইরান পালটা আইনি, রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তবে সেই ব্যবস্থাগুলো কী হবে তা বলেনি। ইরানি বিদেশ মন্ত্রকের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “তিন মাসের…

আরও পড়ুন

গুগল ডেকে পাঠাল ভ্রমণরত কর্মীদের, ট্রাম্পের নির্দেশের সমালোচনায় পিচাই

ওয়াশিংটন: সাতটি মুসলিম-প্রধান দেশের লোকদের আমেরিকায় ঢোকা নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ার পর গুগল তাদের ভ্রমণরত প্রায় শত খানেক কর্মীকে অবিলম্বে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে আসতে বলেছে। বলেছে, আদেশ কার্যকর হওয়ার আগেই যেন তাঁরা ফিরে আসেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর নির্দেশে সই করার পর গুগল-এর সিইও সুন্দর পিচাই তাঁর কর্মীদের ইমেলে জানিয়েছেন, আমেরিকার এই সিদ্ধান্তের ফলে তাঁদের অন্তত পক্ষে ১৮৭ জন ঝামেলায় পড়বেন। আমেরিকায় যে ৭টি দেশের মানুষদের প্রবেশ নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছে, ওই ১৮৭ জন ওই ৭টি দেশের লোক।   মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই আদেশনামার তীব্র সমালোচনা করেছেন গুগল-এর সিইও। বলেছেন, “এই আদেশ যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিভাবান লোকদের আসার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। আমরা এই…

আরও পড়ুন

মালালা থেকে জুকেরবার্গ, ট্রাম্পের নীতির বিরুদ্ধে সরব সবাই

নয়াদিল্লি: অভিষিক্ত হওয়ার পর কেটেছে মাত্র সাত দিন। এর মধ্যেই ট্রাম্পের এক একটি নীতি নিয়ে তোলপাড় হচ্ছে সারা দুনিয়া। কখনও মেক্সিকোর সঙ্গে ৩২০০ কিলোমিটারের দেওয়াল তুলবেন মনস্থির করছেন, কখনও বা গর্ভপাতে সাহায্য করা অসরকারি সংগঠনকে অনুদান দেওয়া বন্ধ করার ঘোষণা করছেন। তাঁর পরামর্শে ডুমস ডে ক্লকের সময় এগিয়ে আনা হচ্ছে প্রায় আড়াই মিনিট। এ বার ৯০ দিনের জন্য সাতটি দেশের মানুষের আমেরিকায় যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট। আন্তর্জাতিক মহলে ইতিমধ্যে প্রতিক্রিয়া আসতে শুরু করেছে ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে। মুখ খুলেছেন ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকেরবার্গ, নোবেলজয়ী মালালা ইউসুফজাই-সহ আরও অনেকেই। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়া নিজেও স্লোভানিয়া থেকে এসেছিলেন…

আরও পড়ুন

ট্রাম্পের অপমানজনক বার্তা, সফর বাতিল মেক্সিকো প্রেসিডেন্টের

ওয়াশিংটন: ইনি কোনো কিছুর ধার ধারেন না। কূটনৈতিক সৌজন্যতা বলে যে একটা বস্তু হয়, তা তাঁর অভিধানে নেই। এঁর কূটনৈতিক কাজকর্ম চালানোর স্টাইল হল কাঠখোট্টা, কর্কশ আর ‘আমেরিকাই প্রথম’ নীতিতে বিশ্বাস। তাই কূটনৈতিক সৌজন্য আর সামাজিক ভব্যতা জলাঞ্জলি দিতে বাঁধে না এঁর। ইনি ডোনাল্ড ট্রাম্প, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট। মেক্সিকোর সীমান্ত বরাবর দেওয়াল তোলার যে প্রতিশ্রুতি তিনি দিয়েছেন তা বাস্তবায়িত করতে মেক্সিকো যদি পয়সা না দেয় তা হলে সে দেশের প্রেসিডেন্ট ঘরে বসে থাকুন –বাণিজ্য ও অভিবাসন বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনার জন্য মেক্সিকোর বিদেশমন্ত্রী লুইস বিদেগারায় যখন তাঁর দলবল নিয়ে ওয়াশিংটনে পৌঁছেছেন ঠিক তখনই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই টুইট বার্তা…

আরও পড়ুন

ট্রাম্প-মোদী কথা হল, সরকারি কর্তা বললেন, ‘গ্রেট কনভারসেশন’

নয়াদিল্লি: মঙ্গলবার। তখন ভারতীয় সময় রাত প্রায় ১২টা, আর ওয়াশিংটনে দুপুর প্রায় দেড়টা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফোন করলেন নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন মসনদে বসার পর দুই নেতার এই প্রথম কথা হল। এর আগে নভেম্বরে নির্বাচনে জেতার পর ট্রাম্পকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন মোদী। দু’জনের মধ্যে কী কথা হল তা বিস্তারিত জানা না গেলেও, এক সরকারি পদাধিকারী এক ‘গ্রেট কনভারসেশন’ বলে বর্ণনা করেছেন। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, ভারত-মার্কিন সম্পর্ক নিয়ে দুই রাষ্ট্রনায়কের কথাবার্তার মাঝে এইচ ১বি ভিসা-সহ দু’ দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্কের বিষয়টি আলোচিত হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের এক অফিসার বলেন, “এইচ ১বি ভিসার সমস্যাটি ছাড়া ট্রাম্পের আমলে দু’…

আরও পড়ুন

প্রথম দিনই সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প

ওয়াশিংটন: ক্ষমতায় আসার এক দিনের মধ্যেই সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধ’ ঘোষণা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-র মঞ্চে এই ঘোষণা করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে নির্বাচনী প্রচারে কখনো নারী-বিদ্বেষী, কখনো বর্ণ-বিদ্বেষী মন্তব্য করে  প্রচারের আলোয় এসেছেন ট্রাম্প। এ বারের বিষয়টিও বেশ অভিনব। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে জমায়েত হওয়া ট্রাম্প-অনুরাগীদের ভিড়ের ‘আয়তন’ নিয়ে মতোনৈক্যের সূত্রপাত। মার্কিন মুলুকের একাধিক সংবাদমাধ্যমের দাবি, ২০০৯ সালের বারাক ওবামার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের চেয়ে ট্রাম্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা মানুষের সংখ্যা তুলনামূলক ভাবে অনেকটাই কম। আর এই রকম মন্তব্যেই ভয়ানক খেপেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ”প্রায় ১৫ লক্ষ মানুষের সমাগম হওয়া সত্ত্বেও ওরা বলছে সংখ্যাটা খুবই নগন্য”, প্রেসিডেন্টের মতে…

আরও পড়ুন

“আমরা অন্যদের সীমান্ত পাহারা দিয়েছি, নিজেদেরটা রক্ষা
করতে পারিনি”

ওয়াশিংটন: একটি বাইবেল, যেটি তাঁর মা তাঁকে দিয়েছিলেন। অন্য বইটি ব্যবহার করেছিলেন আব্রাহাম লিঙ্কন। ১৮৬১ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদে শপথ নেওয়ার সময়। এই দু’টি বই হাতে নিয়ে যখন ৪৫তম মার্কিন প্রেসিডেন্ট শপথ নিচ্ছিলেন, তখন প্রতিবাদের চিহ্ন হিসেবে সেখানে ছিলেন না ৬০ জন ডেমোক্র্যাট সেনেটর। যদিও হিলারি ক্লিন্টন ছিলেন। তিনি শুনলেন, ট্রাম্প বলছেন, “আজকের দিনটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে কারণ এই দিনটিতেই মার্কিন জনগণ তাঁদের দেশের শাসন ক্ষমতা ফিরে পেল”। বৃহস্পতিবারই বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের মঞ্চে চিনা শিল্পপতি জ্যাক মা বলেছিলেন, মার্কিনিদের চাকরি কেউ চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে না। সে দেশের প্রশাসন যুদ্ধ করে টাকা নয়ছয় করার জন্যই দেশের মানুষের চাকরি হচ্ছে না।…

আরও পড়ুন

চিন সম্পর্কে সুর নরম, রাশিয়ার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তোলার ইঙ্গিত ট্রাম্পের

ওয়াশিংটন: নির্বাচনে জেতার পর তাইওয়ানের প্রধানমন্ত্রীর ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ফোনে শুভেচ্ছাবার্তা পাঠানো নিয়ে তোলপাড় হয়েছিল আন্তর্জাতিক রাজনীতি। তাইওয়ানের স্বতন্ত্র অস্তিত্বকে গুরুত্ব দেওয়ায় যথেষ্ট উষ্মা প্রকাশ করেছিল চিন। কয়েক মাস পেরোতেই পরিস্থিতি কিছুটা নরম হল। ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানালেন, এক দশক পুরোনো ‘এ্ক চিন’ নীতি নিয়ে আলোচনায় রাজি তাঁর প্রশাসন। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেছেন, রাশিয়ার ওপর জারি করা নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। ‘এক চিন’ নীতিতে তাঁর কতটা সমর্থন আছে, এই প্রশ্নের উত্তরে ভাবী প্রেসিডেন্ট জানালেন, “কোনও মন্তব্য করার আগে চিনের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই”। ক্ষমতায় আসার পর চিনকে জাল নোটের কারবারি হিসেবে চিহ্নিত করবেন,এমনটা আগেই জানিয়েছিলেন রিপাবলিকান…

আরও পড়ুন