khabor online most powerful bengali news

‘অসমাপ্ত’ জীবনের গল্প

পৃথা তা জীবন মানেই চির অসমাপ্ত এক গল্প। ‘শীর্ষেন্দু’র কোন নতুন নভেলে’- এক অসমাপ্ত গল্পের ছত্রে ছত্রে নিখুঁত বর্ণনা করেছিলেন তিনি। আর সেই ‘আশ্চর্য ভ্রমণ’-এর মত আধা-বাস্তব উপন্যাসকে পুঁজি করেই এবার পর্দায় গল্প বলতে মাতলেন পরিচালক সুমন মুখোপাধ্যায়। বাংলা ছবিতে বরাবর ‘অন্য’ধারার গল্পকে অন্য আঙ্গিকে বলেন সুমনবাবু। অতীতে নবারুণ ভট্টাচার্যের মত লেখকের লেখা নিয়ে কাজ করতে সাহস দেখিয়ে তিনি তাঁর এই ধরনকে প্রমাণও করেছেন। এই ছবি নিয়েও দর্শকদের উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মত। অনেকেরই ‘শেষের কবিতা’-র গল্প বলার ধরন বেশ ভালো লেগেছিল। অসমাপ্ত ছবিতেও তিনি তাঁর দর্শকদের নিরাশ করেননি। সাহিত্য ও সিনেমা কোথাও তাদের মাধ্যমের প্রেক্ষিতে একে অপরকে অতিক্রম করে…

আরও পড়ুন

অভিনয়ের ‘পরশপাথর’ আজও অম্লান বাঙালির মনে

‘পরশপাথর’ ছবিতে।  পাপিয়া মিত্র: ইনি হলেন সেই হেঁশেলবাড়ির হলুদ। রঙ দিয়ে ফুটিয়ে তুলছেন এক একটি পদ। বিয়েবাড়ি থেকে মৎস্যমুখ, অন্নপ্রাশন থেকে পৈতে। ষষ্ঠীপুজো থেকে প্রতিমা বিসর্জন – সবেতেই একমেবাদ্বিতীয়ম। এই হলুদ সব কাজেই লাগে। সকলের প্রয়োজনে লাগছেন। যেখানে এক লহমার দরকার, আবার যেখানে আগাগোড়া, সবেতেই তাঁর অভিনয় অনবদ্য। যেখানে গান তো গান, যেখানে নাচ তো নাচ, অকল্পনীয় উপযোগিতা। গোল গোল চোখ, এক মাথা টাক, অবিন্যস্ত দাঁত আর মোটা ভুঁড়ির মানুষটা হলেন তুলসী চক্রবর্তী। তিনি কমেডিয়ান না পূর্ণ অভিনেতা, সে সব প্রশ্ন দূরে থাক। নাকি তিনি এক জন দক্ষ বাদ্যশিল্পী! থিয়েটারে ঢোকার আগে তিনি শিখলেন পাখোয়াজ-হারমোনিয়াম-তবলা-খোল। বরং বলা ভালো, নিজের গুণপনাকে…

আরও পড়ুন

এখন যাঁরা অভিনয় করেন তাঁরা নাকি দারুণ অভিনয় করেন: চিরঞ্জিত

(প্রায় চল্লিশ বছর ধরে প্রতিটা শ্বাস-প্রশ্বাসে বেঁচে আছেন বাংলা সিনেমার সঙ্গে। শুরু থেকেই বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে সফল নায়ক। সাধারণ মানুষের প্রিয় হিরো, পরবর্তীকালে প্রমাণিত হয়েছে অন্য ধারার চলচ্চিত্রেও তিনি সফল অভিনেতা। তাঁর চিত্র-পরিচালনায় তৈরি হওয়া সিনেমাও পেয়েছে বাণিজ্যিক সাফল্য। যদিও কৈশোর থেকে তাঁর বেড়ে ওঠার মধ্যে দিয়ে যে সিনেমার স্বপ্ন তিনি মনে মনে লালন করেছেন, নির্মাণের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন তা থেকে গিয়েছে প্রায় অধরাই। দূরদর্শনের সংবাদপাঠক হিসেবে শুরু করে দু’শোর বেশি সিনেমার তারকা হয়ে ওঠার মধ্যে দিয়ে চিরঞ্জিত চক্রবর্তী চষে ফেলেছেন বাংলা সিনেমার অন্তরমহল, অলিগলি থেকে বহির্জগত। ‘খবর অনলাইন’-এর সঙ্গে আলাপচারিতায় তাঁর ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার নির্যাস থেকে উঠে এল বাংলা সিনেমার আজ-কাল-পরশুর…

আরও পড়ুন

‘সতী’ ছবিতে ৪১ দিন ডেট নিয়ে ৫ হাজার দেবে বলেছিল, করিনি: চিরঞ্জিত

(প্রায় চল্লিশ বছর ধরে প্রতিটা শ্বাস-প্রশ্বাসে বেঁচে আছেন বাংলা সিনেমার সঙ্গে। শুরু থেকেই বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে সফল নায়ক। সাধারণ মানুষের প্রিয় হিরো, পরবর্তীকালে প্রমাণিত হয়েছে অন্য ধারার চলচ্চিত্রেও তিনি সফল অভিনেতা। তাঁর চিত্র-পরিচালনায় তৈরি হওয়া সিনেমাও পেয়েছে বাণিজ্যিক সাফল্য। যদিও কৈশোর থেকে তাঁর বেড়ে ওঠার মধ্যে দিয়ে যে সিনেমার স্বপ্ন তিনি মনে মনে লালন করেছেন, নির্মাণের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন, তা থেকে গিয়েছে প্রায় অধরাই। দূরদর্শনের সংবাদ পাঠক হিসেবে শুরু করে দু’শোর বেশি সিনেমার তারকা হয়ে ওঠার মধ্যে দিয়ে চিরঞ্জিত চক্রবর্তী চষে ফেলেছেন বাংলা সিনেমার অন্তরমহল, অলিগলি থেকে বহির্জগত। ‘খবর অনলাইন’-এর সঙ্গে আলাপচারিতায় তাঁর ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার নির্যাস থেকে উঠে এল বাংলা সিনেমার…

আরও পড়ুন

২৬ জানুয়ারি থেকে জি বাংলায় কমেডি শো ‘অপুর সংসার’

কলকাতা : জি বাংলায় আসছে নতুন কমেডি শো ‘অপুর সংসার’। ২৬ জানুয়ারি থেকে রাত সাড়ে ৯টায় শুরু হচ্ছে এই শো। কমেডি শোটিতে দেখা যাবে শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, সুদীপা বসু, ফাল্গুনী চট্টোপাধ্যায়, সঞ্চারী মণ্ডল এবং রঙ্গনকে। এঁরা সকলেই একই বাড়ির সদস্যের চরিত্রে অভিনয় করবেন। এই বাড়ির সকলেই বেকার। যে কারণে সকলে মিলে ঠিক করেন, বাড়ি ভাড়া দেবেন। সেই জন্য শুরু হয় ভাড়াটে খোঁজার কাজ। আর প্রতি দিন নিত্য নতুন ভাড়াটে আসার ঘটনাটাই রোজের শো-এর বিষয়। অনুষ্ঠানে এই ভাড়াটের চরিত্রেই মুখ দেখাবেন বিভিন্ন সেলিব্রিটিরা।  যদিও এই অনুষ্ঠানে অনেক অতিথি আসবেন, তবুও ফোকাস পয়েন্টে থাকবেন বাড়ির সদস্যরা আর তাঁদের দৈনন্দিন কাহিনী। হাসিমজার…

আরও পড়ুন

আশা রাখি পেয়ে যাব বাকি দু’আনা

মধুমন্তী চট্টোপাধ্যায় ছবির নাম ‘দ্য বংস এগেন’। অতএব বোঝাই যাচ্ছে ‘বংস’রা আগেও এসেছিলেন। অঞ্জন দত্তের হাত ধরেই এসেছিলেন বছর দশেক আগে। তবে মুক্তি পাওয়ার আগেই পরিচালক জানিয়েছেন, তাঁর নতুন ছবি ‘দ্য বং কানেকশন’-এর সিকোয়েল নয়।  তাই মিল কিংবা অমিল খুঁজে সময় নষ্ট করবেন না। তবে দশ বছরে কতটা পালটাল ‘বংস’ নামের এই আধা-বাঙালি-আধা-বহুজাতিক সম্প্রদায় ? ইংরেজি বলার ফ্রিকোয়েন্সি বেড়েছে নিঃসন্দেহে। আর বেড়েছে যখনতখন নিজের শেকড় খোঁজার একটা ওপর-ওপর ইচ্ছে। কলকাতার মেয়ে ওলি তার না-দেখা বাবার খোঁজে যখন পাড়ি দিচ্ছে বিলেত, সে দেশ থেকে তিন মাসের ভিসা নিয়ে সারা আসছে কলকাতায় তার আসল মাকে দেখতে। কিন্তু অস্তিত্বের এই সংকট তো শুধু…

আরও পড়ুন

বাঙালির হয় ফেলু নয় Q, ওম পুরীরা হরিয়ানায় জন্মায়…

দেবারতি গুপ্ত এ এক অদ্ভুত সমাপতন। ঘুম থেকে উঠে টুইটারের দৌলতেই প্রথম খবরটা পেলাম গত ৬ জানুয়ারি। ওম পুরী সেদিন সকালেই মারা গেছেন। ডিজিটাল মিডিয়া হাতড়ে ওমের মৃত্যু সম্মন্ধে আরো কিছু খবর বের করার চেষ্টা করতে গিয়ে হোঁচট খেলাম আরেকটা খবরে। পরিচালক Q-র  ডবল ফেলুদা সিনেমা প্রসঙ্গে ‘F**k Manik’  মন্তব্য এবং তাতে প্রতিক্রিয়ার ঝড়। আমি ওম পুরী ভক্ত হিসেবে খবরটিতে পাত্তা না দিয়ে সেই দিনটা ওম সম্মন্ধীয় যাবতীয় খবরে নিজেকে নিয়োগ করলাম। ইউ টিউব হাতড়ে ওমের বিভিন্ন ছবির অংশ দেখে, সাম্প্রতিক কালে ওনার করা কিছু বিতর্ক সৃষ্টিকারী রাজনৈতিক মন্তব্য পড়ে এবং ফোন করে বন্ধু বান্ধবের কাছে ওম চর্চা শুরু করে…

আরও পড়ুন

অবশেষে ফেব্রুয়ারিতে বিয়ে হচ্ছে কনীনিকার

কলকাতা : অবশেষে গাঁটছড়া বাঁধতে চলেছেন অভিনেত্রী কনীনিকা বন্দোপাধ্যায় আর সুরজিত হরি। ৫ ফেব্রুয়ারি হবে এই বিবাহ অনুষ্ঠান। গত ডিসেম্বরে বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সুরজিতের বাবার মৃত্যুতে কিছু দিনের জন্য পিছিয়ে গিয়েছিল বিয়ে। বিয়ের প্রায় সমস্ত প্রস্তুতি শেষ হয়ে গিয়েছিল তখনই। সূত্রের খবর, সামাজিক রীতিনীতি মেনেই হবে বিয়ের গোটা অনুষ্ঠান। বিয়ের জন্য লাল বেনারসি পছন্দ করেছেন কনীনিকা। সুরজিতের জন্য পোশাক ডিজাইন করেছেন স্নেহাশিস ভট্টাচার্য  আর রিসেপশনে বর-কনে দু’জনেই পরবেন জ্যোতি খৈতানের পোশাক। সূত্রের খবর, গত বছর রায়চকে ‘ষড়রিপু’র প্রযোজক সুরজিত হরির সঙ্গে পরিচয় হয় কনীনিকার। পরিচয়ের দু’দিনের মাথাতেই কনীনিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন সুরজিত হরি। রাজি হয়ে যান কনীনিকাও। সুরজিতের…

আরও পড়ুন

“আমি রাজনীতি খুব একটা বুঝি না” : সুদীপ গ্রেফতারের প্রতিক্রিয়ায় দেব

কলকাতা: “রাজনীতি খুব একটা বুঝি না” – বললেন ঘাটালের তৃণমূল সাংসদ দেব। মঙ্গলবার রোজভ্যালি কাণ্ডে গ্রেফতার হন তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দোপাধ্যায়। সুদীপের গ্রেফতারি প্রসঙ্গে অভিনেতা দেবকে প্রশ্ন করা করা হলে তিনি এই মন্তব্য করেন। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে স্পষ্টই বললেন, “আমি সত্যিই রাজনীতি নিয়ে খুব একটা কিছু বুঝি না। ফিল্মের যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তো আই আম হ্যাপি টু আন্সার ইউ।” দেব বললেন, “কার নাম উঠে আসছে আর কার নাম উঠে আসছে না সেটা তো ডেফিনেটলি দেখার বিষয়”। তিনি গোটা ব্যাপারটা শুনেছেন। কিন্তু, তাঁর কিছু করার বা বলার নেই। তিনি শুধু তাঁর নিজের কাজের ব্যাপারেই জানেন। কিন্তু, এক জন সাংসদ হয়ে…

আরও পড়ুন

ইন্দ্রাশিস, তনুশ্রী, সম্পূর্ণা: সেলেবদের রেজোলিউশনের খোঁজে টলিপাড়ায়

টালিগঞ্জ : শীতকাল মানেই খুশি, উৎসবের মরসুম। সামনেই ৩১ ডিসেম্বর আর পয়লা জানুয়ারি। দিনগুলো নিয়ে সকলেরই কম বেশি উন্মাদনা থাকে। এর ঠিক আগে আগেই আমাদের কথা হল টলি সেলেব ইন্দ্রাশিস রায়, তনুশ্রী চক্রবর্তীর আর সম্পূর্ণার লাহিড়ী সঙ্গে। তাঁদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল কীভাবে কাটাতে চান এই দিনগুলো? নতুন বছরে কী রেজোলিউশন নিচ্ছেন ওরা? ইন্দ্রাশিস রায় আর তনুশ্রী চক্রবর্তী বলেন, ৩১ ডিসেম্বর বা পয়লা জানুয়ারি নিয়ে তেমন কোনো পরিকল্পনা নেই। তবে এই দিনগুলি অবশ্যই বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে কাটাতে চান। ৩১ ডিসেম্বর একটু অন্য ভাবে কাটাতে পছন্দ করেন ইন্দ্রাশিস। কারণ রাত পোহালেই একটা নতুন বছর শুরু হবে। রাত ১২টা যেন বারোটা না বেজে…

আরও পড়ুন