khabor online most powerful bengali news

স্কুলে নিয়োগ: মামলার জন্য নাম না করে প্রাক্তন মেয়র বিকাশরঞ্জনকে কটাক্ষ পার্থর

কলকাতা: আইনি জটিলতায় থমকে উচ্চ প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে শিক্ষক নিয়োগ। নিয়োগ হওয়ার কথা প্রায় ৩২ হাজার ৫০০ শিক্ষকের। দু-একদিন আগেই বিক্ষোভ ও মামলার জন্য সব বিরোধী দলকে দায়ী করেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এদিন ফের পার্থ বলেন, আমরা তৈরি। ইচ্ছে করে নিয়োগ প্রক্রিয়াকে বিঘ্নিত করার জন্য মামলাগুলো করা হচ্ছে। “আমি জানি, কোন আইনজীবী, কী তার উদ্দেশ্য এবং কেন করছেন”। অর্থাৎ নাম না করে এদিন পার্থ বাম জমানার মেয়র বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যকে আক্রমণ করেন। অন্যদিকে এসএসসি-র চেয়ারম্যান সুবীরেশ ভট্টাচার্য এদিন বলেন, “আইনি জটিলতা মিটলেই আমরা সাতদিনের মধ্যে সমস্ত শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে দেব”।রাজ্যে উচ্চ মাধ্যমিকে শূন্য পদ রয়েছে ৭০০০। মাধ্যমিকে…

আরও পড়ুন

চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলনের জন্য বিরোধীদের দুষলেন পার্থ

কলকাতা:  স্কুল শিক্ষকদের যাবতীয় নিয়োগ ১৫ মার্চের মধ্যে শেষ করার কথা দু’দিন আগেই বলেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শনিবার বললেন, যেভাবে মামলা আর বিক্ষোভ চলছে, তাতে তিন মাসেও নিয়োগ সম্পূর্ণ করা যাবে কি না, সে ব্যাপারে তিনি সন্দিহান।     এদিন শিক্ষামন্ত্রী বলেন, লাল, গেরুয়া, তেরঙ্গা একসঙ্গে চাকরিপ্রার্থীদের বিক্ষোভে উস্কানি দিচ্ছে। যারা উস্কানি দিচ্ছে, তাদের চিহ্নিত করা হবে বলে এদিন হুঁশিয়ারি দেন পার্থবাবু। তিনি আরও বলেন, যারা ভুয়ো সার্টিফিকেট দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার।    পার্শ্ব শিক্ষকদের উদ্দেশে মন্ত্রীর বার্তা, বর্তমান সরকার তাঁদের জন্য সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেছে, তাঁদের চিন্তিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। তবে এভাবে বিক্ষোভ চললে, পার্শ্ব শিক্ষকদের দায় দায়িত্ব…

আরও পড়ুন

বিহার স্টাফ সিলেকশন কমিশনের অ্যাডমিট কার্ডে নায়িকার ‘টপলেস’ ছবি, চাঞ্চল্য

পটনা: ফের শিরোনামে বিহারের শিক্ষা ব্যবস্থা। গত বছর বিহারের বোর্ডের পরীক্ষায় আর্টস বিভাগে প্রথম হয়েছিলেন রুবি রায় নামে এক ছাত্রী। পরে এক সংবাদ চ্যানেলে হাজির হয়ে, তার নিজের বিষয়ের সাধারণ প্রশ্নেরও উত্তর দিতে পারেননি তিনি। ঘটনার জেরে প্রকাশ পায় সে রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থার এক বিরাট কেলেঙ্কারি। গ্রেফতার হয় বেশ কয়েকজন কেউকেটা। আর এবার স্টাফ সিলেকশন কমিশেনের অ্যাডমিট কার্ডে চলে এল এক পরিচিত নায়িকার অনাবৃত ঊর্ধ্বাঙ্গের ছবি। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি বিহারের স্টাফ সিলেকশন কমিশনের ইন্টারমিডিয়েট স্তরের পরীক্ষা। তার জন্য অ্যাডমিট কার্ড দেওয়া হয়েছে গত ৮ জানুয়ারি। তারপরই ধরা পড়ে এই কাণ্ড। জানা গিয়েছে যে পরীক্ষার্থীর অ্যাডমিট কার্ডে এমনটা হয়েছে, তিনি বিহারের…

আরও পড়ুন

স্কুলের গ্রুপ ডি ও গ্রুপ সি পরীক্ষা সম্ভবত ফেব্রুয়ারি ও মার্চে

কলকাতা: স্কুল শিক্ষাকর্মী পরীক্ষার দিন ঘোষণার আগে রাজ্যের সমস্ত স্কুলকে চিঠি পাঠাল স্কুল সার্ভিস কমিশন। কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, চিঠিতে গ্রুপ ডি ও গ্রুপ সি শিক্ষাকর্মী নিয়োগের পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ দেওয়া হয়েছে ১৯ ফেব্রুয়ারি (গ্রুপ ডি) ও ৫ মার্চ (গ্রুপ সি)। মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৭ লক্ষ। পরীক্ষার  জন্য প্রয়োজন ৫০০০ হাজার মতন স্কুল। স্কুলগুলি হ্যাঁ বললেই চূড়ান্ত দিন ঘোষণা করবে স্কুল শিক্ষা দফতর। স্কুল শিক্ষাকর্মীর  গ্রুপ সি পদে আবেদনকারীর সংখ্যা প্রায়  ১২ লক্ষের মতন আর গ্রুপ ডি প্রায় ১৫ লক্ষ।  ২০১৬ সালের আগষ্ট মাসে গ্রুপ সি ও ডি নিয়োগের পরীক্ষার  বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়ে কমিশনের তরফ থেকে।  সেই সময়ে ফাঁকা পদ ছিল ৪৯৫৩।  এই কয়েক মাসে বেড়ে…

আরও পড়ুন

টেট পাশ করা ডি.এল.এড / পি.টি.টি প্রশিক্ষিতদের চাকরি কতটা নিশ্চিত

অভি ভট্টাচার্য ২০১২ সালের প্রাথমিকের টেটে (TET) যে সব ডি. এল. এড প্রশিক্ষিতরা বঞ্চনার অভিযোগ করেছিল, হতাশ ছিল, আজ তাদেরই একাংশ ২০১৪ সালের টেটে পাশ করে চরম আশাবাদী । অভি, আখরুজ্জামান, শুভাশিস, আবদুল, শুভেন্দু, স্বরাজ- এরা সবাই এবার ইন্টারভিউ দিয়েছেন। ওরা সকলেই প্রশিক্ষিত। সকলেই মনে করছেন, কেন্দ্রের মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক ও এন. সি. টি. ই- এর আইন অনুযায়ী প্রত্যেক টেট পাশ ডি.এল.এড-দের চাকরি নিশ্চিত হওয়া উচিৎ।  ওরা প্রশিক্ষিত, ওরা টেট পাশ । ওদের দাবি, রাজ্য সরকার যদি একজন প্রশিক্ষণহীনকেও নিয়োগ করতে চায় তবে আইনানুগ টেট পাশ করা প্রশিক্ষিত সকলের চাকরি পাক । রাজ্য সরকারের গেজেটেও একথা লেখা আছে ।…

আরও পড়ুন

রাজ্যে স্টাফ সিলেকশন কমিশনের মাধ্যমে নিয়োগ সম্পর্কে তথ্য

কেন্দ্রের স্টাফ সিলেকশন কমিশনের মতো রাজ্যের স্টাফ সিলেকশনও দীর্ঘদিন চালু হয়েছে। রাজ্যে এই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ইংরাজিতে হয়। এতে বাংলায় প্রশ্ন থাকে না। এমনকি প্রিলিমিনারিতে বাংলা ভাষায় কোনো প্রশ্ন হয় না বলে বাংলা নিয়ে প্রিলিমিনারিতে কোনো মাথাব্যথা নেই। কিন্তু অনেক পার্ট-টু পরীক্ষায় লিখিত বাংলা ও ইংরাজি পরীক্ষা রাখা হয়েছে। কিছু দিন আগে রাজ্য এসএসসির এলডিএ অর্থাৎ লোয়ার ডিভিশন্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট রেজাল্ট বেরিয়েছে। প্রথমে একটা তালিকা বেরিয়েছে। পরে আরও একটা তালিকা বেরিয়েছে। যারা প্রথমবার উত্তীর্ণ হতে পারোনি তারা ওয়েবসাইটে গিয়ে দ্বিতীয় তালিকা দেখো। দ্বিতীয় পর্বের পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নাও। এই ডিসেম্বরেই হবে কৃষিপ্রযুক্তি সহায়কের পরীক্ষা। লেখা পরীক্ষা থাকবে ১৫০ নম্বরের। তার মধ্যে পার্ট-ওয়ানে…

আরও পড়ুন

উচ্চ প্রাথমিকের আগেই উচ্চ মাধ্যমিকে নিয়োগের ভাবনা এসএসসি-তে

বেতন ফারাকের ফলে  উচ্চ প্রাথমিকে যাতে শূন্য পদ তৈরি না হয় সে ব্যাপারে  সতর্ক  স্কুল সার্ভিস কমিশন।  তাই উচ্চ প্রাথমিকের আগেই একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির  শিক্ষক নিয়োগের ভাবনা শুরু হয়েছে কমিশনে।   একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে যারা শিক্ষক পদে চাকরির জন্য আবেদন করবেন, তাঁদের অনেকেই টেট পরীক্ষায় পাস করে উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক পদেও আবেদনের যোগ্য। তাই তাঁদের যদি আগে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ করা হয় তাহলে তাঁরা পরর্বর্তী কালে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ানোর চাকরি পেয়ে গেলে, উচ্চ প্রাথমিকের চাকরি ছেড়ে দেবে। কারণ ওই পর্যায়ে মাসিক বেতন অনেকটাই বেশি।  এর ফলে উচ্চ প্রাথমিকের ক্ষেত্রে বেশ কিছু শূন্যপদ তৈরি হবে।  এবং…

আরও পড়ুন

প্রাথমিক শিক্ষক পদের ইন্টারভিউ: কিছু প্রস্তুতির টিপ্‌স

অভিজিৎ ব্যানার্জি আপনি যদি চাকরির পরীক্ষার পড়াশোনার মধ্যে থাকেন তবে আপনাকে যেগুলো করতে হবে তা হল – প্রত্যেক দিন সংবাদপত্র পড়তে হবে। পড়া মানে শুধু হেডলাইন পড়া নয়। ভাবতে হবে এখান থেকে কী কী প্রশ্ন পরীক্ষায় জিজ্ঞেস করা হতে পারে। সে ইন্টারভিউ হোক বা লিখিত পরীক্ষা, সাম্প্রতিক ঘটনা সম্বন্ধে আপনাকে সচেতন থাকতেই হবে। এই প্রশ্ন দু–এক বছর আগে ঘটে যাওয়া ঘটনা থেকেও হতে পারে। কী ধরনের চাকরি সেটা মূল কথা নয়। অনেক সময়ে আপনার জ্ঞানকেও যাচাই করে দেখা হয়। ভাবলেন, আপনি ইতিহাস নিয়ে পড়েছন অথচ ভূগোলের এত গভীর প্রশ্ন আপনাকে ধরছে কেন? তার কারণ আপনি বিষয়ট কতটা জানেন, নিজের বিষয়…

আরও পড়ুন

পুজোর আগেই স্কুলে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করার পথে রাজ্য

আজ হলে আজ, কাল হলে কাল। জরুরিকালীন ভিত্তিতে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করার নির্দেশ দিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার  বিকাশ ভবনে তিনি বলেন, যাঁরা টেট উত্তীর্ণ হয়েছেন, তাঁরা অপেক্ষা করছেন বহুদিন ধরে। তাই শিক্ষক নিয়োগে এক মুহূর্ত দেরি করা যাবে না। তিনি এব্যাপারে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে দুই স্কুল বোর্ডের চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন। বিকাশ ভবনে শিক্ষাসচিব, দুই স্কুল বোর্ডের চেয়ারম্যানের সঙ্গে এদিন শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত জরুরি বৈঠকে বসেন শিক্ষামন্ত্রী। বৈঠক থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জানান, তিনি নির্দেশ দিয়েছেন, শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় এক মুহূর্তও দেরি করা যাবে না। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। তা আজই হোক আজ, কাল…

আরও পড়ুন