khabor online most powerful bengali news

কেমন ভাবে বদলাচ্ছে পৃথিবী – এক ঝলকে

নয়াদিল্লি : আমাদের বাসগ্রহ এই পৃথিবী। প্রতি মুহূর্তে পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে তার স্বাভাবিক রূপ। এই পরিবর্তনের পেছনে রয়েছে নানা কারণ। রয়েছে নাগরিক জীবনের ক্রম বিকাশ, মানুষের ক্রিয়াকলাপ, আবহাওয়ার পরিবর্তন, প্রাকৃতিক বিপর্যয়। আবার এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ও নানা রূপে পৃথিবীর ওপর তার করাল থাবা বসিয়েছে। রয়েছে বন্যা, খরা, ধস, ভূমিকম্প, দাবানল ইত্যাদি। কিন্তু তা সত্ত্বেও পৃথিবী এত সুন্দর। পৃথিবীর এই পরিবর্তনের নানা দিক আমাদের সামনে তুলে ধরেছে নাসা। পৃথিবীর সুরক্ষার স্বার্থে আর আগামী দিনে যাতে মানুষ সচেতন হয় সে জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে নাসা। এই উদ্দেশ্যেই মহাকাশের নানা জায়গা থেকে নানা সময়ে ছবি তুলেছে সংস্থাটি। ছবিতে ধরা পড়েছে পরিবর্তনের নানা রূপ। আসুন দেখি…

আরও পড়ুন

বৈষ্ণো দেবীতে ধস নেমে মৃত ৪, জখম ৯

শনিবার ভোরে বৈষ্ণো দেবী মন্দিরের কাছে ধস নেমে চার জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁদের মধ্যে তিন জন তীর্থযাত্রী, এক জন পনিওয়ালা। আহত হয়েছেন ৯ জন। এঁদের মধ্যে এক জন ১০ বছরের কিশোর এবং আর এক জন পশ্চিমবঙ্গ থেকে আসা ২০ বছরের যুবক সুরজিৎ বর্মণ। গুরুতর আহতদের মাতা বৈষ্ণো দেবী সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। পাহাড়ে ধস নামে গুহামন্দির থেকে ৬ কিমি আগে অর্ধকুমারী মন্দিরের কাছে। সারা রাত ধরে বৃষ্টি হওয়ার ফলে হঠাৎ বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তার ফলে এই ধস। যখন ধস নামে তখন তীর্থযাত্রীরা একটা আশ্রয় শিবিরে বিশ্রাম করছিলেন। বৈষ্ণো দেবী মন্দিরে…

আরও পড়ুন

জায়গায় জায়গায় ধস, স্থগিত কেদার-বদ্রি যাত্রা

প্রবল বৃষ্টিতে ফের ধসের কবলে উত্তরাখণ্ডের চামোলি আর রুদ্রপ্রয়াগ জেলার বেশ কিছু অংশ। এর ফলে বদ্রিনাথ আর কেদারনাথ যাত্রা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্থানীয় জেলা প্রশাসন। গত শুক্রবার, ২৯ জুলাই ধসের কবলে পড়ে হৃষীকেশ থেকে বদ্রিনাথ সংযোগকারী ৫৮ নম্বর জাতীয় সড়কে লম্বড়গড়, বেনাকুলি আর গোবিন্দঘাটি। এর ফলে গোবিন্দঘাটিতে আটকে পড়েন সাড়ে ১৩০০-রও বেশি তীর্থযাত্রী। এঁদের মধ্যে ৯৩৭ জন বদ্রিনাথগামী আর ৪৩০ জনের গন্তব্য ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স, হেমকুন্ড সাহেব। অন্য দিকে রুদ্রপ্রয়াগ থেকে কেদারনাথের পথে সোনপ্রয়াগের কাছে ধস নামে। এর ফলে ব্যাহত হয়েছে কেদারনাথ যাত্রাও। উত্তরাখণ্ডের বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের সহ-সচিব সন্তোষ বাদোনি বলেন, “বিভিন্ন জায়গায় ধস এবং পাথর পড়ে থাকার ফলে…

আরও পড়ুন

বর্ষণে বিপর্যস্ত উত্তরাখণ্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩৭

খবর অনলাইন: মেঘ ভাঙা বৃষ্টিতে উত্তরাখণ্ডে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৭। রাজ্যের কুমায়ুন আর গঢ়বাল অঞ্চলে বেশ কয়েকটি মেঘ ভাঙা বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।  ঘটনাগুলি ঘটেছে কুমায়ুনের পিথোরাগড় জেলায় ও গঢ়বালের চামোলি জেলায়। ডিডিহাট মহকুমার চারটি গ্রাম সিঙ্ঘালি, পাট্টাকোট, ওগলা আর থল একেবারে বিধ্বস্ত। বৃষ্টির ফলে বহু জায়গায় নেমেছে ধস। ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ আর রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা দল যৌথ ভাবে উদ্ধারকাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ২১ জন ধ্বংসস্তূপের তোলায় আটকে আছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। অবিরাম বৃষ্টিতে উদ্ধারকাজে ব্যাঘাত ঘটছে  বলে জানিয়েছেন বিপর্যয় মোকাবিলা দলের অফিসার আর এস রানা। উত্তরকাশীতে গঙ্গোত্রী যাওয়ার রাস্তার ৫০ মিটার অংশ ধুয়ে সাফ হয়ে গিয়েছে। এর ফলে লতা এলাকায়…

আরও পড়ুন

মেঘ ভাঙা বর্ষণে বিপর্যস্ত উত্তরাখণ্ড, মৃত ১৭

খবর অনলাইন: প্রাকৃতিক বিপর্যয় লেগেই রয়েছে উত্তরাখণ্ডে। দাবানলের পর এখন মেঘ ভাঙা বর্ষণ ফিরিয়ে আনল তিন বছর আগের সেই ভয়াবহ স্মৃতি। রাজ্যের কুমায়ুন আর গঢ়বাল অঞ্চলে পৃথক দু’টি মেঘ ভাঙা বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে কুমায়ুনের পিথোরাগড় জেলায়। শুক্রবার সকালের মেঘ ভাঙা বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেলার ডিডিহাট মহকুমার অন্তর্গত সিঙ্ঘালি, পাট্টাকোট, ওগলা আর থল। ৫০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এখানে মাত্র দু’ঘণ্টায় বৃষ্টি হয়েছে ১০০ মিমির ওপর। বৃষ্টির ফলে প্রচুর ঘরবাড়ি ভেঙে পড়েছে, নেমেচে ধস। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত আট জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, বহু মানুষ এখনও ধ্বংসস্তূপের তলায় আটকে আছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ…

আরও পড়ুন

বৃষ্টি-ধসে বিপর্যস্ত উত্তরাখণ্ড, তবে চার ধাম যাত্রা চলছে

খবর অনলাইন: মেঘ-ভাঙা বৃষ্টির জেরে উত্তরাখণ্ডের উত্তরকাশী ও টিহরি জেলা বিপর্যস্ত। ঘানশালি ও উত্তরকাশীতে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রায় ৫০টি বাড়ি ভেঙে পড়েছে। বিভিন্ন জায়গায় ধস নেমে পথ সাময়িক ভাবে বন্ধ থাকার দরুন কোথাও কোথাও তীর্থযাত্রীরা আটকে পড়েছেন। তবে চার ধাম যাত্রা বন্ধ হয়নি। চার ধামগামী রাস্তাগুলোতে ধস দ্রুত পরিষ্কার করে খোলা রাখার ব্যবস্থা করছে এসডিআরএফ। আবহাওয়া দফতর সোমবার বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়ে তীর্থযাত্রীদের সাবধানতা অবলম্বন করতে বলেছে। গঙ্গোত্রী থেকে যে রাস্তা উত্তরকাশী হয়ে কেদারনাথ গিয়েছে, সেই রাস্তাটিই সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। ধস নেমেছে বেশি চিনিয়ালিসরের কাছে। ফলে কেদারনাথের শ’ দেড়েক তীর্থযাত্রী লাম্বগাঁও, কোটালগাঁও আর চামিলায়ায় আশ্রয় নিয়েছেন। আবহাওয়া খারাপ হওয়া…

আরও পড়ুন