khabor online most powerful bengali news

দুই হারেই ‘গো ব্যাক মরগ্যান’ স্লোগান

সানি চক্রবর্তী: চার্চিল ম্যাচের পরেই কার্যত দু’ভাগ ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা। আই লিগে দ্বিতীয় হারের পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন একদল সমর্থক। ম্যাচশেষে রীতিমতো ধুন্ধুমার বেঁধে যায় বারাসত বিদ্যাসাগর ক্রীড়াঙ্গনে। প্রথমার্ধে জঘন্য ডিফেন্সের জেরে দুই গোল হজম করার পরে আর চেষ্টা করেও ম্যাচে ফিরতে পারেনি লাল-হলুদ সমর্থকরা। শান্ত গ্যালারি মাঝে কিছুটা রসদ পেয়েছিল পেইনের গোলের পরে। তবে আর গোল না আসায় ম্যাচ-শেষে সেই নিস্তবব্ধতা রূপান্তরিত হয় ক্ষোভে। স্লোগান ওঠে ‘গো ব্যাক মরগ্যান’। ডিফেন্সিভ স্ট্র্যাটেজি নিয়ে খেলিয়ে আগেও সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন ব্রিটিশ কোচ। কিন্তু তাঁর দল ফের জয়ের সরণিতে ফেরায় সব বিতর্ক ধামাচাপা পড়ে গিয়েছিল। আর এ দিনের হারে লিগের শীর্ষস্থান খোওয়ানোর পরেই ফের…

আরও পড়ুন

আজ চার্চিলের মুখোমুখি, ধারাবাহিকতা চাইছেন মরগ্যান

সানি চক্রবর্তী: গুরুত্বপূর্ণ দু’টো অ্যাওয়ে ম্যাচ থেকে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ফিরেছে তাঁর দল। লিগের শীর্ষে থাকার পাশাপাশি ঠিক সময়ে ঘুরে দাঁড়িয়ে ফুরফুরে গোটা ইস্টবেঙ্গল শিবির। প্রশিক্ষক ট্রেভর জেমস মরগ্যান যদিও সতর্ক, যে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগানকে তাঁর দল টেক্কা দিতে পারেনি, তাদেরই হারিয়েছে চার্চিল ব্রাদার্স। আর পালটে যাওয়া সেই চার্চিলের বিরুদ্ধেই খেলতে নামতে হচ্ছে তাঁদের। ভারতীয় ফুটবলে অভিজ্ঞ ডেরেক পেরেইরার ছোঁয়ায় ভোল বদলে গেছে গোয়ার দলটির। গত তিন ম্যাচে তারা ৯টি গোল করেছে। হারিয়ে দিয়েছে শিবাজিয়ান্স ও মোহনবাগানকে। তাই প্রথম লেগে যে দুর্বল চার্চিলকে পাওয়া গিয়েছিল, এ বারে তা হচ্ছে না। তাই তাদের হাতে কোনো ভাবেই নিজের দলের ছন্দ বিগড়ে যাক, চাইছেন…

আরও পড়ুন

প্লাজা-ওয়েডসনের অভাব মেটালেন পেইন, টানটান ম্যাচে ৩ পয়েন্ট ইস্টবেঙ্গলের

ইস্টবেঙ্গল- ২(পেইন ২)    লাজং-১(ডিকা)  শিলং: প্লাজা-ওয়েডসন নেই। তার ওপর ৫০০০ ফুট উঁচুতে খেলা। কিছুদিন আগেই আইজলের কাছে হারের স্মৃতি এখনও অটুট। টেনশনেই ছিলেন ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা। স্ব্স্তি বজায় রইল তাঁদের। ১২ ম্যাচের শেষে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে ১ নম্বরেই রইল লালহলুদ। প্লাজা-ওয়েডসনের অভাব মিটিয়ে উঠে এলেন নতুন বিদেশি তারকা। অস্ট্রেলিয়ার পেইন। খেলা শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই রবিনের ক্রস ধরতে পারলেন না লাজং-এর গোলকিপার। সুযোগ সন্ধানী স্ট্রাইকারের যাবতীয় দক্ষতা দেখিয়ে গোলে বল ঠেললেন পেইন। ম্যাচের তখন ৮ মিনিট।তারপর মাঠ জুড়ে ফুল ফোটাল লাল জার্সির লাজং। ঘনঘন আক্রমণে ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্সে ত্রাহি ত্রাহি রব। ১০ মিনিটে হেড তেকাঠিতে রাখতে পারলেন না ডিকা। ২০ মিনিটে বিপিনের…

আরও পড়ুন

শিলং গাঁট কাটাতে মরিয়া মরগ্যান

সানি চক্রবর্তী: চোটের জেরে নেই উইলিস প্লাজা, ওয়েডসন আনসেলমে। লিগে তাঁর দলের দুই সেরা স্কোরার ও প্লে-মেকার দলে না থাকলেও ফুরফুরে মেজাজেই আছেন ট্রেভর জেমস মরগ্যান। বলেই দিচ্ছেন, “প্লাজাকে ছাড়া যদি বেঙ্গালুরু ম্যাচে জিততে পারি, তা হলে ওয়েডসনকে ছাড়া লাজংকে হারানো যাবে না কেন?” বেঙ্গালুরুকে তাদের ঘরের মাঠে হারিয়ে লিগের শীর্ষস্থান দখলের পরে এমনিতেই চনমনে লাল-হলুদ শিবির। কিন্তু এ বার ফের শক্ত চ্যালেঞ্জের মুখে তারা। শিলং লাজংয়ের ঘরের মাঠে তাদের বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচে খেলতে নামছে লালহলুদ শিবির। ইস্টবেঙ্গলে ট্রেভর জেমস মরগ্যানের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেই বড়োসড়ো হোঁচট দিয়েছিল লাজং। তার পর থেকে মেঘালয়ের দলটি রীতিমতো গাঁট হয়ে উঠেছে মরগ্যানের কাছে। সেটা ভালোমতো…

আরও পড়ুন

রবিনের জোড়া গোল, দুরন্ত ওয়েডসন, জয়ে ফিরল লালহলুদ

ইস্টবেঙ্গল ৩(ওয়েডসন,রবিন ২) – বেঙ্গালুরু এফসি ১ (সি কে বিনীত) বেঙ্গালুরু: একটা দল টানা অপরাজিত থাকার তকমা হারিয়েছে গত ম্যাচে। আরেক দল গতবারের চ্যাম্পিয়ন, কিন্তু গত ছ’টা ম্যাচ জয়ের মুখ দেখেনি। ইস্টবেঙ্গল কেবলমাত্র আইজলের কাছে হারলেও জয় পায়নি তার আগের দু’ম্যাচেও। লিগ শীর্ষে থাকলেও তাই বেশ চাপ নিয়েই নেমেছিল মরগ্যানের ছেলেরা। অন্যদিকে ঘরের মাটিতে সুনীল ছেত্রীদের সব ম্যাচই ডু অর ডাই। এই পরিস্থিতিতে প্রথম পনেরো মিনিট আক্রমণের ঝড় তুলল বিনীত, হরমনজিত, ছেত্রীরা। কিন্তু তারপরই রং বদল। ২২ মিনিটের মাথায় বল ধরে আড়াআড়ি দৌড়ে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বক্সের একটু দূর থেকে শট নিয়ে দুরন্ত গোল করলেন ওয়েডসন। খেলা অনেকটাই ধরে নিল…

আরও পড়ুন

অপরাজিত তকমা খুইয়ে আইজল থেকে ফিরছে ইস্টবেঙ্গল

আইজল এফসি-১ (রালতে) ইস্টবেঙ্গল – ০ আইজল: কয়েকটা টুকরো তথ্য। এক : আই লিগের ইতিহাসে এই প্রথম ইস্টবেঙ্গলকে হারাল আইজল এফসি।  দুই :  এ বারের আই লিগে ঘরের মাটিতে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত আইজল। তিন: ৭ জানুয়ারি, ইস্টবেঙ্গল আই লিগ অভিযান শুরু করেছিল ঘরের মাটিতে আইজল এফসি-র সঙ্গে খেলে। সেই ম্যাচে ৮৮ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও তিন পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পারেনি খালিদ জামিলের ছেলেরা। গোল শোধ করে দিয়েছিলেন বুকেনিয়া।  চার: হেরে যাওয়া সত্ত্বেও আই লিগের শীর্ষেই থাকল লাল হলুদ। ১০ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ২১। অন্যদিকে জিতেও তিন নম্বরেই থাকল আইজল এফসি। ১০ ম্যাচ খেলে তাদের পয়েন্ট ২০।  এবার ম্যাচের কথা। গোটা ম্যাচে…

আরও পড়ুন

শীর্ষে থাকলেও টানা দ্বিতীয় ড্র’য়ে চিন্তা বাড়ছে ইস্টবেঙ্গল শিবিরে

সানি চক্রবর্তী: লক্ষ্য ছিল ৬, এল মাত্র ২। তা-ও খুব একটা আপাত ক্ষতি হল না প্রতিপক্ষদেরও ড্র’র ছটায়। আই লিগে বুধবারের চারটি ম্যাচই অমীমাংসিত রইল। ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা লাজংয়ের কাছে ফের আটকে কিছুটা চিন্তায় পড়লেও চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগানও ড্র করায় চাপমুক্ত হলেন। পাশাপাশি লিগের তিন ও পাঁচে থাকা আইজল-বেঙ্গালুরু ম্যাচ ড্র হওয়ায় প্রথম পর্বের শেষে শীর্ষে থাকার সম্ভাবনাটাই জোরালো হল। আপাতত ৯ ম্যাচে ২১ পয়েন্ট নিয়ে লিগ তালিকার শীর্ষে থাকলেও ইস্টবেঙ্গলের খেলা কিন্তু চিন্তা বাড়াচ্ছে লাল-হলুদ সমর্থকদের। এমনিতেই ডার্বির পরের ম্যাচে হোঁচট খাওয়ার বাজে ট্র্যাক রেকর্ড রয়েছে ইস্টবেঙ্গলের। তার উপরে ছিল লাল-হলুদ শিবিরের বরাবরের গাঁট লাজং। তবে সব কিছুর মাঝেও যেন কোথাও…

আরও পড়ুন

লাজং গাঁট কাটাতে মরগ্যানের পরিকল্পনায় আজ চার বিদেশি

সানি চক্রবর্তী: ডার্বি ম্যাচ এখন ইতিহাস। আপাতত লাল-হলুদ শিবিরের নজরে ফের জয়ের রাজপথে ফেরা। আই লিগের প্রথম পর্বের শেষে লিগের শীর্ষস্থানটা ধরে রাখাই এখন চ্যালেঞ্জ তাদের কাছে। ৮ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে লিগশীর্ষে থাকা ইস্টবেঙ্গল শিবিরকে তাই নতুন উদ্যমে শিলং লাজং ম্যাচের আগে তাতাতে ব্যস্ত মরগ্যান। শিলিগুড়ির কাঞ্জনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামে ইস্টবেঙ্গলের হোম ম্যাচ হলেও পাহাড়ি দলটি পরিবেশগত একটা সাহায্য পাবে। তার উপরে ইস্টবেঙ্গলের কাছে বরাবরের শক্ত গাঁট লাজং। ট্রফি ও ঠোঁটের মধ্যে দূরত্বটা ঠিক কতটা, সেটা ইস্টবেঙ্গল কোচ ট্রেভর জেমস মরগ্যানের খুব ভালো করে জানা। আর প্রথম বার লাল-হলুদে কোচ থাকার দায়িত্বে তাঁর মুখের গ্রাস টানা দুই মরশুম যে দলগুলি কেড়ে…

আরও পড়ুন

পেশাদারিত্বের নিষ্ফলা হিসেবনিকেশে আবেগের আঁকিবুকি সনি-ওয়েডসনের

সানি চক্রবর্তী: হিসেব-নিকেশ কষা ট্যাকটিক্যাল ফুটবল, প্রতিপক্ষকে বিপজ্জনক হতে দেখলেই কড়া ট্যাকেল। অসমান মাঠের পাশাপাশি অতিরিক্ত সাবধানী ফুটবল। সব কিছুর নিট ফল আবেগের বিস্ফোরণটা মাঠের বাইরে হলেও কাঞ্জনজঙ্ঘায় দুই প্রধান উপহার দিল ম্যাড়ম্যাড়ে ফুটবল। তবে আবেগের খাতায় কিন্তু নাম তুলে গেলেন দুই প্রধানের সেরা দুই তুরুপের তাস। সনি চোট নিয়েও খেলে গেলেন, আর সমর্থকদের জন্য তার হৃদয় যে কাঁদে বুঝিয়ে দিলেন ওয়েডসন। ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান দুই শিবিরই নজর দিয়েছে আই লিগের ট্রফিটায়। তাই অতি আক্রমণত্মক খেলতে গিয়ে হেরে যেতে চায়নি কোনো পক্ষই। একটা দু’টো ক্ষেত্র বাদ দিলে তো দেবজিত-রেহানেশদের বলই ধরতে হয়নি। এতেই পরিষ্কার হয়ে যায়, শিলিগুড়ির উৎসবের মেজাজ সঞ্জয়-মরগ্যানের গেমপ্ল্যানে পড়েনি।…

আরও পড়ুন

গোলশূন্য ড্রয়ের শিলিগুড়িতে খলনায়ক মাঠই

শিলিগুড়ি: ৭৫ মিনিটের মাথায় জেজে-কে তুলে বলবন্তকে নামালেন সঞ্জয় সেন। উপায় ছিল না। পুরোটাই নিষ্প্রভ ছিলেন জেজে। কিন্তু ৪৩ মিনিটের মাথায় যদি গোলের সামনে থেকে শটটা নিতে পারতেন তিনি। তাহলে হয়তো এদিনের নায়ক হিসেবে তাঁর নামই লেখা হতো। কিন্তু পারেননি, কারণ মাঠের অসমান বাউন্স। পুরো ম্যাচ জুড়ে বারবার বল ধরতে অসুবিধায় পড়েছেন খেলোয়াড়রা। দৌড়তে দৌড়তে পড়ে গেছেন। কারণ ওই মাঠ। বড়ো ম্যাচের আবেগ দর্শকদের বিষয়। কিন্তু সেই আবেগকে মর্যাদা দেওয়ার দায় তো শুধু খেলোয়াড়দের নয়, ক্রীড়া প্রশাসনের কর্তাদেরও। এই সমস্যা না মিটলে ভারতীয় ফুটবল এক কদমও এগোবে না। তা সে ফিফা যতই ৪৮ দলের বিশ্বকাপ করুক। এবার খেলার কথা। ম্যাচের…

আরও পড়ুন