khabor online most powerful bengali news

বাঙালির হয় ফেলু নয় Q, ওম পুরীরা হরিয়ানায় জন্মায়…

দেবারতি গুপ্ত এ এক অদ্ভুত সমাপতন। ঘুম থেকে উঠে টুইটারের দৌলতেই প্রথম খবরটা পেলাম গত ৬ জানুয়ারি। ওম পুরী সেদিন সকালেই মারা গেছেন। ডিজিটাল মিডিয়া হাতড়ে ওমের মৃত্যু সম্মন্ধে আরো কিছু খবর বের করার চেষ্টা করতে গিয়ে হোঁচট খেলাম আরেকটা খবরে। পরিচালক Q-র  ডবল ফেলুদা সিনেমা প্রসঙ্গে ‘F**k Manik’  মন্তব্য এবং তাতে প্রতিক্রিয়ার ঝড়। আমি ওম পুরী ভক্ত হিসেবে খবরটিতে পাত্তা না দিয়ে সেই দিনটা ওম সম্মন্ধীয় যাবতীয় খবরে নিজেকে নিয়োগ করলাম। ইউ টিউব হাতড়ে ওমের বিভিন্ন ছবির অংশ দেখে, সাম্প্রতিক কালে ওনার করা কিছু বিতর্ক সৃষ্টিকারী রাজনৈতিক মন্তব্য পড়ে এবং ফোন করে বন্ধু বান্ধবের কাছে ওম চর্চা শুরু করে…

আরও পড়ুন

কেঁন্দাশোলে হুদুর দুর্গা (মহিষাসুর) স্মরণ দিবসে তাহাদের কথা

অচিন পাখিরা দুর্গোৎসবের ছুটি কাটাতে পাহাড় আর জঙ্গলের মধ্যে অনেকেই বেছে নেন জঙ্গল। আর জঙ্গল মানেই তো শাল–মহুলের বন আর আদিবাসী। আর ভ্রমণপিপাসুরা যখন গাছগাছালি ঘেরা ছোটো ছোটো বাংলো, হলিডে হোমে সকালবেলায় আকাশে শরতের মেঘের আনাগোনা উপভোগ করেন, তখনই তাদের আবির্ভাব ঘটে।  হ্যাঁ, ওদের কথাই বলছি । ওরা মানে সাঁওতাল, মুন্ডা, ওরাওঁ প্রভৃতি আদিবাসী যুবকেরা ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত বীরাঙ্গনা নারীর মতো শাড়ি পরে সেরেঞ বা ভূযাং হাতে দলবদ্ধ ভাবে নাচতে নাচতে চলে যায় তখন কি একবারও ভেবে দেখেন এই নাচটার নাম কী ?  যদি বা জানলেন নাচটার নাম দাঁশাই নাচ, কিন্তু জেনেছেন কি কেনই বা ছেলেরা মেয়েদের শাড়ি পরে…

আরও পড়ুন

কেঁন্দাশোলে হুদুর দুর্গা (মহিষাসুর) স্মরণ দিবসে তাহাদের কথা

অচিন পাখিরা দুর্গোৎসবের ছুটি কাটাতে পাহাড় আর জঙ্গলের মধ্যে অনেকেই বেছে নেন জঙ্গল। আর জঙ্গল মানেই তো শাল–মহুলের বন আর আদিবাসী। আর ভ্রমণপিপাসুরা যখন গাছগাছালি ঘেরা ছোটো ছোটো বাংলো, হলিডে হোমে সকালবেলায় আকাশে শরতের মেঘের আনাগোনা উপভোগ করেন, তখনই তাদের আবির্ভাব ঘটে।  হ্যাঁ, ওদের কথাই বলছি । ওরা মানে সাঁওতাল, মুন্ডা, ওরাওঁ প্রভৃতি আদিবাসী যুবকেরা ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত বীরাঙ্গনা নারীর মতো শাড়ি পরে সেরেঞ বা ভূযাং হাতে দলবদ্ধ ভাবে নাচতে নাচতে চলে যায় তখন কি একবারও ভেবে দেখেন এই নাচটার নাম কী ?  যদি বা জানলেন নাচটার নাম দাঁশাই নাচ, কিন্তু জেনেছেন কি কেনই বা ছেলেরা মেয়েদের শাড়ি পরে…

আরও পড়ুন

ইতিহাসের পাতা থেকে: দুর্গা পূজা, মহিষাসুর ও বহুস্বরের সংস্কৃতি

সায়ন্তনী অধিকারী বছরের সেই সময়টি উপস্থিত, যখন ভোর চারটেয় উঠে ঘুম চোখে রেডিও খুলে “আশ্বিনের শারদ প্রাতে…” শুনে দিন শুরু করেন অগণিত বাঙালি। মহালয়ার দিনে মহিষাসুরমর্দিনী অনুষ্ঠান ধ্বনিত হয় চতুর্দিকে, শুরু হয় দেবীপক্ষ, দেবী দুর্গার মর্ত্যে আগমনের সময়। রেডিওর চণ্ডীপাঠ থেকে মহিষাসুর বধের গল্প আমাদের কাছে বহুল পরিচিত। অত্যাচারী কিন্তু ব্রহ্মার বরপ্রাপ্ত অসুর, যার অত্যাচারে দেবতা ও মানুষেরা ছিলেন বিপর্যস্ত, সেই প্রবল পরিক্রমশালী অসুর কে যুদ্ধে পরাজিত করে হত্যা করেন দেবতাদের শক্তিতে বলীয়ান দেবী আদ্যাশক্তি। তাঁর এই জয়কেই হিন্দু বাঙালি উদযাপন করে দুর্গা পুজায়। উচ্চবর্ণ হিন্দুর ধার্মিক সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই কাহিনিতে উচ্চারিত হয়। দুর্গা পুজা-কে আমরা অনেক সময়েই…

আরও পড়ুন

কবিতা, গান ও নাচে শিল্পীকে সম্মান

আচার্য অ্যাক্সিস। কবিতা, গান ও নাচে শিল্পীকে সম্মান। সম্প্রতি নজরুল মঞ্চে পালিত হল পন্ডিত আচার্য জয়ন্ত বোসের ৬০ তম জন্মবার্ষিকী।  এই সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করেছিল  বিঙ্কর মিউজিকাল সোসাইটি। অনুষ্ঠানে কবিতা ও গানে পন্ডিত আচার্য্ বোসকে শ্রদ্ধা জানালেন প্রখ্যাত সব শিল্পীরা। ছিলেন পন্ডিত তেজেন্দ্রনারায়ণ মজুমদার, পন্ডিত তন্ময় বোস। শুধু ক্লাসিকাল ঘরানাই নয়, সেমি ক্লাসিকাল ঘরানার শিল্পীরাও সুরে ভরিয়ে তোলেন এদিনের নজরুল মঞ্চ।  কে না ছিলেন শিল্পী তালিকায়।  ইন্দ্রানী সেন, শুভমিতা ব্যানার্জি, শম্পা কুন্ডু, জয়তি চক্রবর্তী, অনুসূয়া মুখার্জী, মনোময় ভট্টাচার্য, রূপঙ্কর বাগচি, রাঘব চ্যাটার্জি সহ আরও অনেকে। নৃত্যানুষ্ঠানের  কোরিওগ্রাফি করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্না নৃত্যশিল্পী মালবিকা সেন এবং কৌশিক চক্রবর্তী।  

আরও পড়ুন