ওমের অকালে চলে যাওয়াটা ‘আকস্মিক’ নয় : নাসিরউদ্দিন

0
37

অভিনেতা ওম পুরীর মৃত্যুর পর যখন তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর ঝড় উঠেছে, সেই সময় কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি তাঁর প্রিয় বন্ধু নাসিরউদ্দিন শাহ-র কাছ থেকে। শুটিং-এর জন্য মুম্বইয়ের বাইরে ছিলেন নাসির, ফিরে এসে মুখে খুলেছেন এক সংবাদমাধ্যমের কাছে। জানিয়েছেন, ওমের অকালে চলে যাওয়াটা ‘আকস্মিক’ নয়। ব্যক্তিগত সমস্যা তাঁর মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্যকে ‘ক্ষত-বিক্ষত’ করে তুলেছিল। কিছু ‘খারাপ’ ছবিতে অভিনয় করতে হচ্ছিল বলে মানসিক ভাবে ‘বিধ্বস্ত’ ছিলেন ওম। কিন্তু টাকার জন্য তাকে এ সব করতে হচ্ছিল।

তাঁদের বন্ধুত্বের সুন্দর মুহূর্তগুলোকেও স্মরণ করেছেন নাসির। এক সঙ্গে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন দু’জনে। ধারাবাহিক ভাবে বলিউডের ‘সমান্তরাল’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন দু’জনে। ওমের সাফল্যে কোনো দিন হিংসা বা বিরক্তি আসেনি নাসিরের। বন্ধুর সাফল্যে আনন্দই পেয়েছেন তিনি।

যখন ওম পশ্চিমে তাঁর সাফল্য, টম হাঙ্কস বা স্টিভেন স্পিলবার্গের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতার কথা বলতেন, তখন তিনি আনন্দই পেতেন বলে জানিয়েছেন নাসির।om-naseer2

চিরকাল ‘শিকড়’ আকড়ে থেকেছেন ওম। সাফল্য বা ব্যর্থতা কোনো কিছুই তাঁকে শিকড় থেকে উপড়ে ফলতে পারেনি বলে মনে করেন নাসির।

দু’জনে একে অপরের ছবিতে ছোট ভূমিকায় অভিনয় করলেও, তা করেছেন আনন্দের সঙ্গে। সাই প্যারাঞ্জপির ছবি ‘স্পর্শ’-এ একটি ছোটো ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন ওম পুরী। একবার নাসির তাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, ‘এই ছোটো ভূমিকায় অস্বস্তি হল না?’ ওম গালাগাল দিয়ে বলেছিলেন, ‘আরে ইয়ার, এই ছবিটায় আমি তোমার জন্য অভিনয় করছি না। আমি অভিনয় করছি, কারণ আমি ভালো ছবিতে বিশ্বাস করি।’

om-naseer

নাসির জানিয়েছেন, অনেকেই ওম পুরীকে ওম শিবপুরীর সঙ্গে গুলিয়ে ফেলতেন। কেউ কেউ আবার তাঁকে অমরীশ পুরীর ভাই বলে জানতেন। একবার অমরীশ পুরীর গলা নকল করে নাসিরকে ফোন করেছিলেন ওম। নাসির জানিয়েছেন, তিনি বিন্দুমাত্র বুঝতে পারেননি,  ভেবেছিলেন অমরীশজি তাঁকে ফোন করেছেন।

শুটিং-এর জন্য শহরের বাইরে ছিলেন, তাই প্রিয় বন্ধু ওমের শেষকৃত্যে  যেতে পারেননি। তাঁর ছেলে এবং স্ত্রী গিয়েছিলেন। আফশোসটা থেকেই গেল। নাসির ‘মিস’ করবেন বন্ধুকে। ‘মিস’ করবেন বন্ধুর দরাজ হাসি আর আর উদার প্রাণশক্তিকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here