২০২৬ সাল থেকে বিশ্বকাপ ফুটবল খেলবে ৪৮ দেশ

0
33

জুরিখ: ২০২৬ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিতে পারবে ৪৮ টি দেশ। মঙ্গলবার জুরিখে ফিফার সভায় সর্বসম্মত ভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফিফার সদস্যরা। ফিফার প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফ্যান্তিনো এই প্রস্তাব এনেছিলেন।

এই সিদ্ধান্তের ফলে বিশ্বকাপের মোট ব্যবসা বেড়ে দাঁড়াবে প্রায় ৪৩ হাজার ৮২০ কোটি টাকায়। ফিফার লাভ বেড়ে দাঁড়াবে ৪হাজার ৩১৬ কোটি টাকায়।  

দল বাড়ার ফলে পাল্টে যাবে টুর্নামেন্টের ফর্ম্যাটও। ৪৮টি দলকে ১৬টি গ্রুপে ভাগ করা হবে। প্রতিটি গ্রুপ থেকে ২টি করে দল নকআউট পর্বে উঠবে। অর্থাৎ ৩২টি দলকে নিয়ে শুরু হবে নকআউট পর্ব। এর ফলে টুর্নামেন্টের মোট ম্যাচ ৬২ থেকে বেড়ে দাঁড়াবে ৮০-তে। যদিও যে দুটি দল ফাইনালে খেলবে তাদের গোটা টুর্নামেন্টে এখনকার মতোই ৭টি ম্যাচই খেলতে হবে। টুর্নামেন্ট চলবে ৩২ দিন।

১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপ ফুটবলে দলের সংখ্যা ২৪ থেকে বেড়ে ৩২ হয়ে যায়। ১৯৩০ সালে বিশ্বকাপ শুরুর সময় টুর্নামেন্টে দলের সংখ্যা ছিল ১৩। ১৯৩৪-এ সেটা বেড়ে দাঁড়ায় ১৬-য়। ১৯৮২ সালের স্পেন বিশ্বকাপে দলের সংখ্যা বেড়ে হয় ২৪। মাঝে ১৯৫০ এ খেলেছিল ১৩টি দেশ।

ডিসেম্বরে তাঁর এই প্রস্তাব সম্পর্কে দুবাইতে ফিফার প্রেসিডেন্ট ইনফ্যান্তিনো বলেছিলেন, দলের সংখ্যা বাড়লে গোটা দুনিয়ায় ফুটবলের উন্নতি হবে। “কোনো দেশে ফুটবলকে জনপ্রিয় করার প্রধান উপায়ই হল তাদের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করানো”। তাঁর দাবি, এই সিদ্ধান্ত “শুধুই টাকার কথা ভেবে নয়”।

অনেকেই অবশ্য মানতে নারাজ ইনফ্যান্তিনোর কথা। তাদের মতে, ফিফার বর্তমান কর্তারা “অর্থ ও ক্ষমতালিপ্সু”। ফুটবলের সঙ্গে যুক্ত অনেকেই মনে করছেন, এই সিদ্ধান্তের ফলে বিশ্বকাপে প্রতিযোগিতার মান নেমে যাবে। কমে যাবে যোগ্যতামান নির্ণায়ক স্তরের গুরুত্ব। সব মিলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন ক্রীড়ামোদারাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here