Search

রাজ্য সরকারের গ্রুপ ডি পদে নিয়োগ, জটিল সিলেবাস, প্রস্তুতিও অন্যরকম

রাজ্য সরকারের গ্রুপ ডি পদে নিয়োগ, জটিল সিলেবাস, প্রস্তুতিও অন্যরকম

রাজ্য সরকার গ্রুপ ডি পদে নিয়োগ করবে। অষ্টম শ্রেণি যোগ্যতা থাকলে আবেদন করা যাবে। কিন্তু যে ভাবে সিলেবাস করা হয়েছে তাতে অষ্টম শ্রেণির মানকে অতিক্রম করে যাবে – এমন ধারণা সিলেবাস দেখে মনে হওয়াটা স্বাভাবিক।

মোট নম্বর ৮৫। প্রতি প্রশ্নের মান ১। কোনো নেগেটিভ মার্কিং থাকবে না। তিনিটি পেপার থাকবে। পেপারগুলি হল—

১) জেনারেল স্টাডিজ ৪০ নম্বর,

২) ল্যাঙ্গুয়েজ পেপার (বাংলা/নেপালি/হিন্দি/উর্দু) ১০ নম্বর,

৩) এলিমেন্টরি ম্যাথমেটিক্স ৩৫ নম্বর।

প্রশ্ন হবে বাংলা ও ইংরাজি দুই মাধ্যমেই। তুমি যে সিলেবাসেই পড়াশোনা করে থাকো না কেন, পরীক্ষা দেওয়ার ক্ষেত্রে তোমায় নতুন এবং পুরনো সিলেবাসের মধ্যে যে কোনো একটিকে বেছে নিতে হবে। দু’টি মিলিয়ে করতে পারবে না।

প্রতি পেপারে তোমাকে ন্যূনতম নির্দিষ্ট নম্বর পেতে হবে। সেই নির্দিষ্ট নম্বর না পেলে তোমাকে যোগ্য বলে বিবেচনা করা হবে না। নম্বরটি কত হবে সেটা বিবেচনা করবে পর্ষদ। আগে থেকে কিছুই জানানো হবে না। আর এখানেই পরীক্ষাটা কঠিন হয়ে গেল। অতএব আলাদা আলাদা বিষয়ে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে তৈরি হতে হবে।

মনে রাখতে হবে ——-

মেধা তালিকার ওপর থেকে নেওয়া হবে।

চূড়ান্ত মেধা তালিকা হবে পরীক্ষা আর ইন্টারভিউতে পাওয়া নম্বরের যোগফল করে।

বিভিন্ন পদ ও ক্যাটাগরির জন্য আলাদা আলাদা করে তালিকা হবে।

পদগুলি হল –

পিওন, আর্দালি পিওন, নাইট গার্ড, ফরাশ ইত্যাদি। এখানে বলে রাখা দরকার যে, যে কোনো ভারতীয় নাগরিকই পদের জন্য আবেদন করতে পারে। কিন্তু সংরক্ষণের সুবিধা পাবে কেবল এই রাজ্যের প্রার্থীরাই।

এই পর্বের লেখায় আজ ল্যাঙ্গুয়েজ পেপার নিয়ে আলোচনা করছি। কারণ, তোমরা ওয়েবসাইটে সিলেবাস দেখে বিভ্রান্তিতে পড়তে পার।


বাংলা ব্যাকরণে একটি অংশ আছে যেটাকে বলে নির্মিতি অংশ। যেখানে থাকে পত্র রচনা ও প্রবন্ধ। এখান থেকে কী প্রশ্ন হতে পারে ? তাও আবার অবজেকটিভ টাইপের। এই অংশ থেকে এ পর্যন্ত কোনো পরীক্ষায় অবজেকটিভ টাইপের প্রশ্ন করা হয়নি। কিন্তু এবার হবে। বাজারের সাধারণ বইতে কিন্তু এই সম্বন্ধে কোনো ধারণা পাবে না। এক জন শিক্ষকের সাহায্য তোমাকে নিতে হবে। আসলে গতানুগতিকতা থেকে একটু দূরে সরে গিয়ে পর্ষদ এমন চিন্তা ভাবনা নিয়েছে। একটা প্রশ্নের উদাহরণ দিচ্ছি——


প্রশ্ন —— ব্যক্তিগত চিঠি আর অফিশিয়াল চিঠির পার্থক্য কী?

প্রশ্ন —— প্রবন্ধ ও অনুচ্ছেদের পার্থক্য কী?

প্রশ্ন —— একটি চিঠির ক’টি অংশ?

চাকরির পরীক্ষায় এই সমস্ত প্রশ্ন অপ্রাসঙ্গিক বা ভ্রান্তিকর নয়। তোমরা যারা পরীক্ষা দেবে তারা এ সব কথা না ভেবে পরীক্ষার প্রস্তুতি কী ভাবে নেবে সে কথা ভাব। পর্ষদের পক্ষ থেকে যদি সিলেবাসে পরিবর্তন আনা হয়, সে কথা আলাদা। নয়তো তোমরা প্রস্তুতি শুরু করো।

এই পর্বে ল্যাঙ্গুয়েজ পেপার নিয়ে কিছু কথা আলোচনা করলাম। পরের পর্বে এই পরীক্ষা নিয়ে আরও আলোচনা করব। এলিমেন্টরি ম্যাথমেটিক্স কিন্তু এবারে অন্য রকমের হবে, এমন কি জেনারেল স্টাডিজের প্রশ্নও। কারণ পরীক্ষার্থী বেশি, পদ সংখ্যা বেশি নয়। বাছতে গেলে পর্ষদও নানা কৌশল অনুসরণ করবে।

ভালো করে সিলেবাস ও খুঁটিনাটি জানতে www.wbgdrb.in দেখবে।

শেয়ার করুন

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন