Search

অম্বি নদীর তীরে পানশেট

অম্বি নদীর তীরে পানশেট
পানশেট ড্যাম। পিছনেই পাহাড়ের সারি।  শ্রয়ণ সেন জায়গাটার নাম পানশেট। ভারত কেন, পুনে আর কিছুটা মুম্বইয়ের বাইরে গোটা মহারাষ্ট্রের কাছে এই জায়গাটার বিশেষ কোনো পরিচিতি নেই। অথচ নীরবে, নিভৃতে, নিরিবিলিতে কয়েক রাত কাটানোর জন্য পানশেটের জুড়ি মেলা ভার। ১৯৬১ সালে একটি কুখ্যাত ঘটনার জন্য গোটা ভারতের কাছেই পরিচিত হয়ে গিয়েছিল পানশেট। অম্বি নদীর ওপর সেই বছরই তৈরি হয় এখানকার বাঁধটি।... আরও পড়ুন

কুকুছিনার কাহিনি : জীবন্ত মহাকাব্য

কুকুছিনার কাহিনি : জীবন্ত মহাকাব্য
সুমিত্র বন্দ্যোপাধ্যায় দ্বারাহাট থেকে আট কিলোমিটার দূরে ধুধৌলিতে একটি সরকারি অতিথিশালা একা একা দাঁড়িয়ে আছে পুজো-না-পাওয়া কার্তিক ঠাকুরের মতো মুখ ম্লান করে। এই নিঃসঙ্গ অতিথিনিবাসে এক দিন বাতি জ্বালালে মন্দ হয় না। কুকুছিনা থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে দুনা গিরিমাতার মন্দির। রাস্তা থেকে অনেক উঁচুতে, প্রায় পাঁচশো সিঁড়ি ভেঙে উঠতে হবে। দুনা গিরিমার মাহাত্ম্য এখানকার যে কোনো মানুষের কথায় ও... আরও পড়ুন

কুকুছিনার কাহিনি : গাড়ি ছোটো, ‘দিল’ বড়ো

কুকুছিনার কাহিনি : গাড়ি ছোটো, ‘দিল’ বড়ো
সুমিত্র বন্দ্যোপাধ্যায় পাণ্ডবদের তখন অজ্ঞাতবাস চলছে, তাঁদের খুঁজে বার করতে চতুর্দিকে ছুটে বেড়াচ্ছে কৌরব সেনার দল। আজকের উত্তরাখণ্ডের যে গ্রামে পাণ্ডবদের অবস্থানের শেষ খবর পাওয়া গিয়েছিল সেখানেও ধাওয়া করেছিল কৌরবরা। কিন্তু ওই ধাওয়া করে যাওয়াই সার, কোথায় কী? পথ এসে শেষ এই গ্রামে, এর পর শুধু দুর্গম পাহাড় আর গভীর অরণ্য। রহস্যমাখা প্রকৃতির বুকে আত্মগোপন করল পাণ্ডবরা, ছাউনি বানিয়ে বসে... আরও পড়ুন

লাখুদিয়ার গুহা : বিরল ইতিহাসের সাক্ষী

লাখুদিয়ার গুহা : বিরল ইতিহাসের সাক্ষী
মৌ মুখোপাধ্যায় পুজোর ছুটি পড়তেই বেরিয়ে পড়লাম কুমায়ুনের পথে। ভোর সওয়া ৫টায় যখন কাঠগুদাম স্টেশনে নামলাম তখনও ভোরের আলো ফোটেনি। স্টেশনের বাইরে বেরোতেই চোখে পড়ল সারিবদ্ধ পাহাড়, যেন কোনো ভূমিকা ছাড়াই স্বমহিমায় বিরাজমান। তখনও জানতাম না আরও একটি বিস্ময় আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। হিমালয়কে সঙ্গী করে আমরা একে একে ঘুরে নিয়েছিলাম রানিখেত, কৌশানি, মুন্সিয়ারি, পাতাল ভুবনেশ্বর। এর পর আমরা আলমোড়া... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ১০: বৃষ্টির বাড়ি সোহরা

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ১০: বৃষ্টির বাড়ি সোহরা
মৈত্রী মজুমদার ডাওকি থেকে ফেরার পথে ‘Y’ বাঁকের মুখে ঠিক করলাম চেরাপুঞ্জির দিকে ঘুরে যাই। এত সুন্দর মেঘলা দিনে যদি মেঘের দেশে নাই থাকি তবে আর কবে থাকব। আর বাদলঘন গহন দিনে পৃথিবীর সব থেকে বৃষ্টিসিক্ত জায়গায় থাকার সৌভাগ্যই বা ক’জনের হয়।  এখানে একটা কথা জানিয়ে রাখি। মেঘালয় মেঘের রাজ্য, তাই এখানে বেড়াতে আসার জন্য বর্ষাকালই সব থেকে উপযুক্ত সময়।... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৯ : মেঘের দেশে মাওলিংনং

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৯ : মেঘের দেশে মাওলিংনং
মৈত্রী মজুমদার : বেশ কিছু দিন আগে ফেসবুকে একটি নিবন্ধ দেখেছিলাম। ভারতের বেশ কিছু না জানা প্রত্যন্ত গ্রাম বা জনপদের নাম ছিল সেখানে, যারা কিনা বিশেষ বিশেষ কারণে শুধু দেশেই নয় বিদেশেও দেশের মুখ উজ্জ্বল করেছে। তাদের মধ্যে সবার প্রথমে যে নামটি ছিল সেটি ‘মাওলিংনং’ নামে মেঘালয়ের এক গ্রামের। সে জায়গা নাকি এশিয়ার মধ্যে সব চেয়ে পরিচ্ছন্ন এক গ্রাম। ২০০৩-২০০৪... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৮: অচেনা গুয়াহাটি ও পবিতরা অভয়ারণ্য

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৮: অচেনা গুয়াহাটি ও পবিতরা অভয়ারণ্য
মৈত্রী মজুমদার অসম বা নর্থইস্ট যেতে হলে যে জায়গা না পেরোলেই নয় তা হল অসমের রাজধানী গুয়াহাটি। আর গুয়াহাটিতেও ভ্রমণবিলাসীদের দেখার জায়গা নেহাত কম নেই। জানি জানি, এক্ষুনি বলবেন আপনারাও জানেন। নিশ্চই জানবেন, কিন্তু যা যা জানেন না সে রকম কিছু জানাই আজ। অসমের প্রাণকেন্দ্র হল ব্রহ্মপুত্র নদ যার দয়ায় অসমের আদিগন্ত সবুজ হয়ে থাকে আবার বর্ষায় যার দু’কূল ছাপানো... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৭ : নামেরির জলে জঙ্গলে

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৭ : নামেরির জলে জঙ্গলে
মৈত্রী মজুমদার জল জঙ্গলের দেশ অসম। তবু এখানে বেড়ানোর কথা উঠলেই লোকে বলে “হ্যাঁ গেছি কাজিরাঙ্গা”। কাজিরাঙ্গা তো অবশ্যই যাবেন, ইউনেস্কো হেরিটেজ বলে কথা, কিন্তু তাছাড়াও অসমের যত্রতত্র ছড়িয়ে আছে পাহাড় জঙ্গল, নদীর সীমাহীন রহস্য উন্মোচনের অবারিত হাতছানি। এই যেমন ধরুন অসমের শোনিতপুর জেলার সদর শহর তেজপুর থেকে মাত্র ৯ কিমি দূরে, ‘নামেরি ওয়াইল্ড লাইফ স্যাংচুয়ারি’। তেজপুরের মিশন চারিয়ালি থেকে... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৬: তীর্থশহর হাজোর ‘পোয়া মক্কা’য়

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৬: তীর্থশহর হাজোর ‘পোয়া মক্কা’য়
মৈত্রী মজুমদার শহরে ঢোকার মূল ফটক পেরিয়ে অল্প গেলেই বাঁ হাতে লাল মাটির পাহাড়ি পথ উঠে গেছে সবুজ শালজঙ্গলের মাঝখান দিয়ে। পাকদণ্ডী পথে নীচের দিকে আদিগন্ত বিস্তৃত সবুজ মাঠ, ধানক্ষেত, এ সব দেখতে দেখতে উঠে গেলেই পৌঁছে যাওয়া যাবে গরুড়াচল পাহাড়ের ওপর। তার পর সার সার দোকানের পাশের রাস্তা দিয়ে এক্কেবারে মাজারের সিঁড়িতে। এটাই ‘পোয়া মক্কা’। অসম তথা উত্তরপূর্বের ইসলাম... আরও পড়ুন

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৫: তীর্থশহর হাজোর মণিকূট পাহাড়ে

অতীন্দ্রিয় উত্তরপূর্ব ৫: তীর্থশহর হাজোর মণিকূট পাহাড়ে
মৈত্রী মজুমদার “চল মিনি আসাম যাব…তোর দ্যাশে বড় দুখরে…” একটা সময় ছিল যখন বাংলার মানুষ দারিদ্রের জ্বালা সহ্য করতে না পেরে অসমে পাড়ি দিতেন। সুজলা সুফলা অসমের আদিগন্ত বিস্তৃত চা–বাগান, তেলের খনি, খেটে খাওয়া মানুষের মনে জীবিকার আশ্বাস জাগাত। আবার একই ভাবে অসমের মানুষের কাছে বঙ্গদেশ ছিল ব্যবসার পীঠস্থান। অসম আর বাংলার যোগাযোগ তাই অনেক প্রাচীন। আবার দেশের উত্তরপূর্বের সঙ্গে... আরও পড়ুন