khabor online most powerful bengali news

পালং পাতায় মানুষের হৃদ-স্পন্দন : গবেষণায় বিজ্ঞানীরা

ম্যাসাচুসেটস : গাছের পাতার সংবহনতন্ত্রের সঙ্গে মানুষের শরীরে শিরা-ধমনীর মিল রয়েছে। সেই মিলকে কাজে লাগালেন এক দল বিজ্ঞানী। চিকিৎসা শাস্ত্রে ইতিমধ্যেই মানুষের শরীরের অনেক অঙ্গপ্রতঙ্গই কৃত্রিম ভাবে তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। তাতে ব্যবহার করা হয়েছে নানা জৈব-অজৈব সামগ্রী। এ বার হৃদকোষ তৈরি করার জন্য ব্যবহার হল হৃদয়ের আকৃতি আর রক্ত সংবহনতন্ত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ পালং পাতাকে। এতদিন মানুষের হৃদকোশ নষ্ট হয়ে গেলে তা আর কোনো ভাবে তৈরি করা সম্ভব ছিল না। ফলে নষ্ট হয়ে যাওয়া অংশের কোনো সুরাহা করা যেত না। যদি এই প্রচেষ্টা সফল হয় তাহলে চিকিৎসাশাস্ত্রের এক যুগান্তকারী দিক খুলে যাবে বলে মনে করছেন গবেষকরা। এই গবেষণাটি করছেন, ওরসেস্টার পলিটেকনিক…

আরও পড়ুন

বিশ্বের বৃহত্তম কৃত্রিম সূর্য জ্বলে উঠল জার্মানিতে

কোলোন: সূর্যের আলোর প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। কিন্তু এই সময়ে জার্মানির অধিকাংশ অঞ্চলই সূর্যের আলো সে ভাবে পায় না। সে সমস্যার সমাধানেই ‘বৈজ্ঞানিক বিপ্লব’ ঘটিয়ে ফেললেন ‘জার্মান এয়ারোস্পেস সেন্টার’-এর বিজ্ঞানীরা। তাঁদের চেষ্টাতেই জ্বলে উঠল বৃহত্তম কৃত্রিম সূর্য। কোলোন শহরের তিরিশ কিলোমিটার দূরে জুয়েলিখে এই আলো জ্বালানোর ব্যবস্থা হয়েছে। ১৪৯টি জেনন ল্যাম্প নিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই জিনিসটাকে। অনেকটা মৌচাকের মতো দেখতে। পুরো ব্যাপারটার নাম দেওয়া হয়েছে সিনলাইট।  বিজ্ঞানীদের মতে, এই সময় এই অঞ্চলের মাটিতে সূর্যের যত পরিমাণ রশ্মি এসে পৌঁছোয়, তার দশ হাজার গুণ রশ্মি পৌঁছে দেবে এই কৃত্রিম সূর্য। প্রায় তিন হাজার ডিগ্রি তাপমাত্রা উৎপন্ন হবে এই আলোয়, যা হাইড্রোজেন গ্যাস…

আরও পড়ুন

মাকড়সার বিষ থেকে সারতে পারে স্ট্রোকজনিত ব্রেন ড্যামেজ : গবেষণা

ব্রিসবেন (অস্ট্রেলিয়া) : সাংঘাতিক বিপজ্জনকের তালিকায় ‘ফানেল ওয়েব স্পাইডার’। মানুষকে এক বার কামড়ালে তার ১৫ মিনিটের মধ্যে মৃত্যু অবধারিত। এই রকম একটি মারাত্মক মাকড়সার বিষেই নাকি আছে এক বিশেষ ধরনের প্রোটিন, যা সাহায্য করবে ব্রেন ড্যামেজ সারাতে। এমনকি স্ট্রোক হওয়ার বেশ কয়েক ঘণ্টা পরেও তা কাজ করবে ব্রেন ড্যামেজ থেকে বাঁচাতে, এমনটাই বলছে একটি গবেষণা।  গবেষণাটি করেছেন কুইনসল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও মনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। গবেষণাটি করার জন্য তাঁরা তিনখানা এই জাতীয় মাকড়সা সংগ্রহ করেন। এই মাকড়সাগুলোকে দুধ খাওয়ানোর জন্য নল ব্যবহার করেন বিজ্ঞানীরা। নলের গোড়ায় মাকড়সারগুলির বিষ সংগ্রহ করেন। এই বিষের নমুনা মিলিয়ে তাঁরা দেখেছেন তিনটি বিষের নমুনাই একই রকম। এই বিষের মধ্যেই এক…

আরও পড়ুন

গাণিতিক ভাবে পরম শূন্যে পৌঁছোনো সম্ভব নয়, প্রমাণ করলেন দুই গবেষক

লন্ডন: চাপ স্থির রেখে তাপমাত্রা বাড়ালে গ্যাসীয় পদার্থের আয়তন প্রসারিত হয়। একই ভাবে তাপমাত্রা কমালে গ্যাসের আয়তন কমে। তাপমাত্রা কমাতে কমাতে ০ কেলভিন বা -২৭৩.১৫ সেলসিয়াসে নিয়ে গেলে গ্যাসটির আয়তন শুন্য হয়ে যায়। তাই ০ কেলভিন বা -২৭৩.১৫ সেলসিয়াসকে বলা হয় পরম শূন্য। থার্মোডায়নামিক্সের এই তৃতীয় সূত্রের জন্য জার্মান বিজ্ঞানী ভালথার নারন্সট ১৯২০ সালে রসায়ন বিভাগে নোবেল জিতেছিলেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও পরম শূন্যের ভাবনার বিরোধিতা করেছিলেন আইনস্টাইন, মাক্স প্লাঙ্ক-এর মতো তাবড় পদার্থবিদরা। নারন্সটের নোবেল জয়ের একশো বছর পেরোতে না পেরোতেই লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের দুই গবেষক প্রমাণ করলেন কোনো বাস্তব ব্যবস্থায় পরম শূন্যে পৌঁছোনো সম্ভব নয়।  ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডনের দুই গবেষক জনাথন…

আরও পড়ুন

ব্রাত্য নয় প্লুটো, তাকেও গ্রহের মর্যাদা দেওয়া উচিত বলছে গবেষণা

ওয়াশিংটন : ‘একে চন্দ্র, দু’য়ে পক্ষ’ – এই পাঠের লাইন ভেঙে ছিল কয়েক বছর আগেই। নির্দ্বিধায় বলা যেত না ‘নয়ে নবগ্রহ’। ২০০৬ সালে এক দল মহাকাশবিজ্ঞানী ঘোষণা করেন প্লুটো নাকি গ্রহ নয়। কিন্তু সৌরজগতের অন্য গ্রহদের মতো প্লুটোকেও গ্রহের মর্যাদা দেওয়া উচিত। তাকে পদচ্যুত করা হয়েছে ভুল করে। এমনই বললেন আমেরিকার জন্স‌ হপকিনস বিশ্ববদ্যালয়ের মহাকাশবিজ্ঞানী কিরবি রুনিয়ন। তাঁর মতে, পাথুরে বরফাবৃত প্লুটোও গ্রহ। সৌরজগতে গ্রহ পরিবারের সব থেকে ছোটো সদস্য সে। প্লুটোর পরিসর চাঁদের চার ভাগের তিন ভাগ। আর পৃথিবীর ৫ ভাগের এক ভাগ। এর ভূপৃষ্ঠে যা কিছু ঘটে চলেছে তার সবটাই গ্রহের মতোই। সেখানে অ-গ্রহ জাতীয় কোনো কিছু ঘটেনি। গ্রহের…

আরও পড়ুন

বিশ্বের প্রাচীনতম উদ্ভিদ জীবাশ্মের সন্ধান ভারতে

লন্ডন ঃ ১৬০ কোটি বছরের প্রাচীন লাল শ্যাওলার জীবাশ্ম পাওয়া গেল ভারতের মধ্যপ্রদেশ থেকে। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন এটাই হয়ত পৃথিবীর প্রাচীনতম উদ্ভিদজাতীয় প্রাণের উদাহরণ। মধ্যপ্রদেশের চিত্রকূট এলাকা থেকে এই জীবাশ্ম মিলেছে। ‘সুইডিশ মিউজিয়াম অব ন্যাচারাল হিস্ট্রি’-র গবেষকরা মনে করছেন, পৃথিবীতে বহুকোষীর জন্ম সংক্রান্ত এত দিনের ধারণা ভুল। যত দিন আগে বহুকোষীর জন্ম হয়েছিল বলে মনে করা হত, আসলে বহুকোষীর জন্ম তার থেকেও বহু বছর আগে।  এককোষী প্রাণের জন্ম হয় ৩৫০ কোটি বছর আগে। সেই সময় এই সব কোষে বেশ কিছু কোষাঙ্গ অদৃশ্য ছিল। এর বহু বছর পর বহুকোষীর উদ্ভব। মনে করা হত, আজ থেকে প্রায় ৬০ কোটি বছর আগে পৃথিবীতে এই বহুকোষীর উদ্ভব। তখন…

আরও পড়ুন

জন্মনিরোধকে আস্থার জের, বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারেন নাস্তিকরা

কুয়ালা লামপুর: ধার্মিক মানুষ জন্মনিরোধকের ব্যবহার কম করেন। তাই তাঁদের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। অন্যদিকে জন্মনিরোধক ব্যবহার করে ক্রমেই কমে যাচ্ছে নাস্তিকেরা। পরিস্থিতি যে দিকে গড়াচ্ছে, তাতে এমন দিন আসতে পারে, যখন বিলুপ্ত হয়ে যাবেন নাস্তিকরা। আমেরিকা ও মালয়েশিয়ার একদল গবেষকের করা সমীক্ষায় উঠে এসেছে এমনই ছবি। সাধারণ ভাবে মনে করা হয়, ধর্মে বিশ্বাসী মানুষের সংখ্যা দুনিয়া জুড়ে কমে যাচ্ছে। বিজ্ঞানীরাও তেমন মতই পোষণ করে থাকেন। কিন্তু এই সমীক্ষা সম্পূর্ণ উল্টো পরিসংখ্যান সামনে নিয়ে এসেছে। মালয়েশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকরা সম্প্রতি দুই দেশের চার হাজার ছাত্র-ছাত্রীর ওপর এই সমীক্ষা চালান। সেখানে তাঁদের ধর্মীয় বিশ্বাস এবং ভাইবোনের সংখ্যা জানতে চাওয়া হয়। দেখা…

আরও পড়ুন

ভারতের হারিয়ে যাওয়া চন্দ্রযানের খোঁজ পেল নাসা

ক্যালিফোর্নিয়া: ২০০৮ সালে বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে চাঁদে নিজেদের মহাকাশযান পাঠিয়ে ইতিহাস গড়েছিল ভারত। যদিও কোনও মহাকাশচারী ছিলেন না তাতে। সব কিছু ভালোই চলছিল, নিয়মিত চাঁদ থেকে ছবি আর নানা তথ্য ভারতে পাঠাচ্ছিল চন্দ্রযান ১। হঠাৎই ২০০৯-এর আগস্টে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় চন্দ্রযান ১-এর সঙ্গে। দীর্ঘ আট বছর নিখোঁজ থাকার পর অবশেষে খোঁজ মিলল তার। এমনই দাবি করেছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা।  গ্রাউন্ড রাডারের সাহায্যে নাসার বিজ্ঞানীরা খোঁজ পেলেন হারিয়ে যাওয়া চন্দ্রযান ১-এর। আয়তনে খুব ছোটো হওয়ায় চন্দ্রযান ১-এর খোঁজ পাওয়া বেশ কঠিন ছিল, জানিয়েছেন নাসার গবেষকরা। রাডার প্রযুক্তির সাহায্যে সাধারণত গ্রহাণুদের সন্ধান করা হয়। তবে চন্দ্রযানের অবস্থান পৃথিবী থেকে…

আরও পড়ুন

কানাডার উপকূলে মিলেছে প্রাচীনতম জীবাশ্ম, দাবি ব্রিটিশ বিজ্ঞানীদের

লন্ডন: পৃথিবীর প্রাচীনতম জীবাশ্ম আবিষ্কারের দাবি করেছেন এক দল ব্রিটিশ বিজ্ঞানী। তাঁদের দাবি, এই জীবাশ্মের বয়স অন্ততপক্ষে ৩৭৭ কোটি বছর। এগুলোর বয়স ৪২৮ কোটি বছর পর্যন্ত হতে পারে। বৃহস্পতিবার ‘নেচার’-এ এই আবিষ্কারের কাহিনি সবিস্তার প্রকাশিত হয়েছে। এই জীবাশ্ম পাওয়া গিয়েছে সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম আঁশ (ফিলামেন্ট) ও নলের (টিউব) আকারে। গবেষকদের বিশ্বাস, লোহার ওপর বেড়ে ওঠা ব্যাক্টেরিয়ার জীবাশ্ম এগুলো। ব্যাপারটি যদি সত্যি হয়, তা হলে এগুলিই হল, পৃথিবীর প্রাণের সঙ্গে সব চেয়ে প্রাচীন প্রত্যক্ষ যোগসূত্র। জীবাশ্মর এই নমুনা প্রোথিত ছিল কোয়ার্টৎজ পাথরে, পাওয়া গিয়েছে কানাডার কুইবেকের কাছে হাডসন বে-র পূর্ব উপকূল বরাবর প্রত্যন্ত নুভভুয়াগিটুক সুপারক্রাস্টাল বেল্টে (এনএসবি)। যে আন্তর্জাতিক গবেষকদলটি এই জীবাশ্ম আবিষ্কার…

আরও পড়ুন

হাতি দিনে ২ ঘণ্টা ঘুমোয়, বলছে গবেষণা

ওয়াশিংটন : স্থলজ স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে সব থেকে কম ঘুমোয় হাতি। দিনে মাত্র দু’ ঘণ্টা। কোনো কোনো দিন তাও ঘুমোয় না। আর বেশির ভাগ সময়ে ঘুমোয় দাঁড়িয়ে।  প্রায় সবাই জানে হাতি কখনও ভোলে না। এখন নতুন গবেষণায় উঠে এল, বলতে গেলে হাতি ঘুমোয়ও না। গবেষকরা এই প্রথম বার হাতির ঘুমের পরিমাণ নিয়ে গবেষণা করলেন। গবেষণাটি পরিচালনা করেন দক্ষিণ আফ্রিকার ইউনিভার্সিটি অব উইটওয়াটারস্রান্ড-এর স্কুল অব অ্যানাটমিক্যাল সায়েন্সের প্রধান পল ম্যাঞ্জার। গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়, পিএলএসও ওয়ান পত্রিকায়।    এই গবেষণাটি করা হয় বোতসোয়ানা চোবে জাতীয় উদ্যানে। সেখানে দু’টি আফ্রিকান মেয়ে-হাতির শুঁড়ের চামড়ার নীচে ঘড়ির মতো যন্ত্র লাগিয়ে দেওয়া হয়। এই যন্ত্রটি উপগ্রহের…

আরও পড়ুন