khabor online most powerful bengali news

প্রযুক্তিনির্ভরতা বাড়াচ্ছে সামাজিক দুরত্ব, সচেতনতামূলক প্রচারে শহর ‘মিস্টার ওয়ার্ল্ড’

কলকাতা : বাসে করে প্রেমিক-প্রেমিক যাচ্ছে। একই সিটে পাশাপাশি বসে। কারও সঙ্গে কোনো কথা নেই। হাতে-হাতের আলতো স্পর্শ নেই। দেখে বোঝা যায় দু’জনের মধ্যে কোনো ঝগড়া হয়নি। উভয়ের হাতে ধরা মোবাইল। হোয়াটস অ্যাপের চ্যাট চলছে পরস্পরের সঙ্গে। এ দৃশ্য নতুন নয়, চোখ মেলে তাকালে এ রকম এক গুচ্ছ নির্দশন চোখে পড়বে। যোগাযোগের মাধ্যম বেড়েছে, কিন্তু তা হয়ে উঠছে প্রযুক্তিনির্ভর। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে দূরত্ব বাড়ছে মানুষে মানুষে। তাঁদের মতে ‘সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং’ শক্তিশালী হলেও ‘সামাজিক ভাবে বিচ্ছিন্ন’ হচ্ছে মানুষ। ঘনিষ্ট মানুষের সঙ্গে যোগাযোগও হয়ে উঠছে প্রযুক্তিনির্ভর। এই বিষয়টি নিয়েই মানুষকে সচেতন করতে গত এক বছর ধরে প্রচার চালিয়ে আসছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন…

আরও পড়ুন

প্রথম বছরেই উৎসাহের ঢল বরানগর ম্যারাথনে

বরানগর (উঃ ২৪ পরগনা): ক্রীড়াজগতে ‘অ্যাথলেটিক্স’ বলে একটি ইভেন্ট আছে সেটা বোধহয় আমরা ক্রমশ ভুলতে বসেছি। কারণ? এ যাবৎকালে ‘অ্যাথলেটিক্স’-এ তেমন কোনো সাফল্য নেই। তাই এই ক্রীড়াকে উৎসাহ দেওয়ার মতো কোনো স্পনসরের হুড়োহুড়ি নেই। অথচ এই বাংলার বহু ছেলেমেয়ে ছোটো থেকে অ্যাথলেটিক্সের মতো ক্রীড়ার সঙ্গেই যুক্ত হয়। বিশেষ করে ‘লং ডিসট্যান্স’ দৌড়ে। রীতিমতো নিষ্ঠা ভরে ‘প্র্যাকটিস’ করে। কিন্তু বেশির ভাগেরই লক্ষ্য শেষ হয়ে যায় একটি চাকরি পাওয়াতে। পুলিশ, মিলিটারি, রেল, শুল্ক বিভাগ ইত্যাদিতে এখনও জেলা কিংবা জাতীয় স্তরে সাফল্য পেলে চাকরি মেলে। অন্তত কিছুটা সুবিধা হয়। এগিয়ে থাকা যায় অন্যান্য চাকরিপ্রার্থীর থেকে। রবিবার বনহুগলি যুবক সংঘ আয়োজিত প্রথম বরানগর ম্যারাথনের…

আরও পড়ুন

বাসন্তীতে অনুষ্ঠিত হল তরুণতীর্থের শিক্ষা শিবির

পাপিয়া মিত্র : খ্রিস্টমেলা শেষ হতে না হতেই আবার মেতে উঠল বাসন্তী। সম্প্রতি তিন দিনের অখিল ভারত তরুণতীর্থের রাজ্য শিক্ষা শিবির অনুষ্ঠিত হল বাসন্তীতে। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছ’শো ছাত্রছাত্রী যোগ দিয়েছিল। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী থানার অন্তর্গত শিবগঞ্জে চম্পা মহিলা সোসাইটি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় শিবির। বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও কুচকাওয়াজের মাধ্যমে প্রারম্ভিক অনুষ্ঠানের সুচনা হয়। শিবগঞ্জ, কুমিরমারি, বল্লারটোপ, রানিগড়, ভরতগড় হয়ে প্রায় দু’ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে  শোভাযাত্রা। শিবিরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানের রাজ্য সভাপতি শিক্ষক অমল নায়েক। প্যারেড, ড্রিল, ব্রতচারী, লোকনৃত্য, লাঠিখেলা, খোখো, কাঠিনাচ, দেশাত্মবোধক গান প্রভৃতি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রাথমিক চিকিৎসা, শিশু ও নারী পাচার,…

আরও পড়ুন

ইন্দাসের আকুইয়ে অনুষ্ঠিত হল আবৃত্তি সম্মেলন

আকুই, বাঁকুড়া: বাঁকুড়ার ইন্দাস ব্লকের আকুই গ্রামে অনুষ্ঠিত হল আবৃত্তি সম্মেলন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব অনাদি বসু, বেতারশিল্পী দেবাশিস ধাড়া, ইন্দাসের বিডিও সুচেতনা দাস, পূর্বস্থলী এক নম্বর ব্লকের বিডিও পুস্পেন চট্টোপাধ্যায়, সমাজকর্মী রমাপ্রসাদ সেন প্রমুখ। অনুষ্ঠানের প্রথমে সংবর্ধনা দেওয়া হয় সর্বশিক্ষা মিশনের পরীক্ষায় প্রথম স্থানাধিকারী গায়ত্রী গুহ আর নাট্যব্যক্তিত্ব অনাদি বসুকে। কবিতা, গান, উপনিষদ আর গীতার শ্লোক আবৃত্তি, শ্রুতি নাটক মঞ্চস্থ হয়। আবৃত্তি পরিবেশন করেন ইন্দাসের বর্তমান আর প্রাক্তন বিডিও-ও। সব মিলিয়ে এক আবৃত্তিময় শীতকালীন সন্ধে উপভোগ করেন সাধারণ দর্শক।

আরও পড়ুন

দুর্গার ভূমিকায় যৌনকর্মীরা, পথনাটিকায় মন ভরাচ্ছে সোনাগাছি

‘মহিষাসুরমর্দিনী মা দুর্গা’। দুর্গা রূপে সোনাগাছির যৌনকর্মীরা। দেবীর আবির্ভাবের পৌরাণিক কাহিনিকে নাটিকার অবয়বে নিয়ে এল কোমল গান্ধার নামে একটি নাট্য দল। আয়োজনে দুর্বার মহিলা সমিতি। বৃহস্পতিবার জাদুঘরের উদ্যোগে শোভাবাজারে প্রদর্শিত হল এই পথনাটিকা। এরপর শহরের নানা স্থানে প্রদর্শিত হবে এই নাটক। প্রদর্শিত হবে বিভিন্ন জেলাতেও, জানিয়েছেন দুর্বার মহিলা সমিতির সম্পাদক রেবা দে। যৌনকর্মীর পেশায় থেকেও এই মহিলারা সমাজে মা দুর্গার মতো দুষ্টের দমন করতে পারেন, এমন বার্তাই রয়েছে নাটকটিতে। শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নাটকটি অভিনীত হওয়ার জন্য ডাক আসছে বলে জানিয়েছেন রেবা দে।    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই নাটক দলের এক যৌনকর্মী জানালেন, “বাধ্য হয়েই আমরা এই পেশায় আসতে…

আরও পড়ুন

‘ওগো মায়া ওগো বাতায়ন’: মনোজ্ঞ গ্রন্থ প্রকাশ অনুষ্ঠান

‘কোনও কিছুকে দেখার জন্য একটা ম্যানুয়ালের দরকার হয়। সেদিনের কলকাতাকে দেখার জন্য আমি একটা ম্যানুয়াল লিখে গেলাম। যদি কারও দরকার পড়ে উল্টে দেখবেন।’‘ওগো মায়া ওগো বাতায়ন’ বইটির আনুষ্ঠানিক প্রকাশে এমনটাই বলছিলেন বইয়ের লেখক যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়। সম্প্রতি নন্দন-৩ এ আনুষ্ঠানিক প্রকাশ হল বইটি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সুরঞ্জন দাস, বাংলাদেশের বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার তনভীর মোকাম্মেল। লেখক সঞ্জয় মুখোপাধ্যায় এবং প্রচ্ছদ-অলঙ্করণ শিল্পী সনাতন দিন্দা তো ছিলেনই। অনুষ্ঠান শুরু হতে কিছুটা দেরি হযে যাওয়ায় প্রথা অস্বীকার করে কোনো গান গল্প বাদ দিয়েই সঞ্চালক শ্রী কুশল ভট্টাচার্য পোডিয়ামে ডেকে নেন সনাতন-কে। সঞ্জয়ের ছাত্র-বন্ধু সরাসরি গেলেন ব্যক্তিগত…

আরও পড়ুন